দাবি আদায়ে কর্মবিরতি পালন করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা 

পেনশন
  © লোগো

সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিদ্যমান পেনশন ব্যবস্থা বাতিল করে পেনশন সংক্রান্ত প্রত্যয় স্কিম প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয় অন্তর্ভুক্তিকরণ এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তনের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করবে দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। এরপরও দাবি বাস্তবায়ন করা না হলে আগামী ৪ জুন পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

রবিবার (২৬ মে) সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুল ইসলাম ও মহাসচিব অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়ার স্বাক্ষর করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।


বিজ্ঞপ্তিতে নেতৃদ্বয় বলেন, ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ২৮ মে সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত সারা দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ একযোগে দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করবেন। এর পরে ও কর্তৃপক্ষ আমাদের দাবির প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হলে আগামী ৪ জুন দেশব্যাপী সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করবেন। ঐ দিনই পরবর্তী কর্মসূচি গৃহীত হবে। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন-এর আহবানে সাড়া দিয়ে দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকগণ রবিবার (২৬ মে) সকাল সাড়ে ১১টায় একযোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।

এর আগেও দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতিগুলো বিবৃতি প্রদান, মৌনমিছিল ও কালো ব্যাজধারণ করার মাধ্যমে এ প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার করেছে এবং উক্ত তিনটি দাবির প্রেক্ষিতে স্বাক্ষর গ্রহণ কর্মসূচি পালন করেছে। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন শিক্ষকদের স্বাক্ষর সমেত স্মারকলিপি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করেছে।

আমরা বিশ্বাস করতে চাই আমাদের এতদূর পর্যন্ত যেতে হবে না, শিক্ষার সার্বিক পরিবেশ নির্বিঘ্ন ও নিরবচ্ছিন্ন রাখতে আমাদের দাবির প্রতি সংশ্লিষ্ট সবাই শ্রদ্ধাশীল হবেন ফেডারেশনের ডাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আন্দোলনে যে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করেছেন এজন্য সবার প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন সংগঠনটির দুই শীর্ষ নেতা।


মন্তব্য


সর্বশেষ সংবাদ