রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম ধাপে ভর্তি সম্পন্ন ৯৬ শতাংশ 

রবীন্দ্র
  © ফাইল ছবি

গুচ্ছভুক্ত ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তির প্রথম ধাপ শেষ হয়েছে। প্রথম ধাপে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে দুইশ’ আসনের মধ্যে ভর্তি হয়েছেন ১৯২ জন শিক্ষার্থী। এতে প্রথম ধাপে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির হার দাঁড়িয়েছে ৯৬ শতাংশ।

অনলাইনে প্রাথমিক ভর্তি ফি জমা দিয়ে এবং স্বশরীরে মূল মার্কশিট জমা দিয়ে ভর্তির সময় ছিল ৮ জুন শনিবার পর্যন্ত। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি বিভাগে ১৯২ জন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পন্ন করেন। এছাড়াও সঙ্গীত বিভাগের ভর্তিচ্ছুদের ব্যবহারিক পরীক্ষা আগামী ১০-১২ জুন অনুষ্ঠিত হবে।

জানা যায়, এবার রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০ আসনের বিপরীতে আবেদন করেন ৫৯০৮ জন, যা নবীন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। এতে আসনপ্রতি লড়ছেন প্রায় ৩০ জন ভর্তিচ্ছু। এছাড়াও সঙ্গীত বিভাগে আবেদন করেছেন ২৭০ জন ভর্তিচ্ছু।

এ বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহ্ আজম বলেন, “শিক্ষার সাথে সংস্কৃতির যোগসাধনে আমরা সদা তৎপর। সংস্কৃতি চর্চা ও লালন আমাদের অন্যতম অঙ্গীকার। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পারস্পরিক মতবিনিময় ও তাদের সৃজনশীল প্রয়োগের মাধ্যমে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা, সংস্কৃতি ও গবেষণায় প্রতিনিয়ত অগ্রগতি লাভ করছে। শিক্ষার মানোন্নয়নে আউটকাম বেজড পাঠক্রম, সহ-শিক্ষামূলক কার্যক্রম, আন্তর্জাতিক কনফারেন্সের আয়োজন প্রভৃতি কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জন্য সৃজনশীল শিক্ষা পরিবেশ তৈরিতে আমরা সচেষ্ট রয়েছি। যার ফলে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায় সমসাময়িক সময়ে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে শীর্ষে। এছাড়াও সঙ্গীত বিভাগে বিগত দুই বছরের তুলনায় অভূতপূর্ব আগ্রহী ভর্তিচ্ছু দেখা গিয়েছে।”

জিএসটি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মাঝে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করেন ভর্তিচ্ছুরা। এর মধ্যে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০ হাজার ৮৪২ জন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৯ হাজার ৬০৩ জন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২২ হাজার ৪৬১ জন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭ হাজার ৬৬৪, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬ হাজার ৩৩৯, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭ হাজার ৯৮৭, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৮ হাজার ৮২৫, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৮ হাজার ৯৮০, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪ হাজার ৪১৮, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১২ হাজার ৬৭৩ জন।

এছাড়া বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫ হাজার ৯৭৩, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪ হাজার ২৬৪, গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭ হাজার ৩৮৪, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬ হাজার ৪০৯, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ হাজার ৯০৮, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ হাজার ৪৬, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ হাজার ৯০৮, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ২ হাজার ২১৮, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ হাজার ১৭৮, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ হাজার ৫৭৮, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ হাজার ৫৮৫, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক হাজার ৩৭৬, চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক হাজার ৮৪১, সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক হাজার ২৯৭ এবং পিরোজপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই হাজার ৫৩ জন ভর্তির জন্য আবেদন করেছেন।


মন্তব্য