নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সর্বাত্মক কর্মবিরতির ঘোষণা

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়
  © ফাইল ছবি

সর্বজনীন পেনশন সংক্রান্ত 'প্রত্যয়' প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি ও স্বতন্ত্র বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের দাবিতে সর্বাত্মক কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। শনিবার (২৯ জুন) রাতে শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের এক সভায় বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সাথে একাত্মতা পোষণ করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক, আগামী ১ জুলাই থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালন করা হবে। এর অন্তর্ভুক্ত থাকবে ক্লাস, পরীক্ষা ও সকল প্রকার দাপ্তরিক কাজ। এরপর ৭ জুলাই শিক্ষক লাউঞ্জে সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালন করা হবে। 

এছাড়াও আজ ৩০ জুন পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করার কথা থাকলেও গ্রীষ্মকালীন অবকাশ ও ঈদুল আজহার ছুটি উপলক্ষে একাডেমিক কার্যক্রম ছুটি এবং গুরুত্বপূর্ণ সিন্ডিকেট সভা থাকায়, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের স্বার্থের কথা চিন্তা করে দাপ্তরিক কার্যক্রম এর আওতামুক্ত থাকবে।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. তুষার কান্তি সাহা বলেন, প্রত‍্যয় স্কীম হলো জাতিকে মেধাশুণ্য করার জন্য একটা গভীর ষড়যন্ত্র। যদি স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হয় তাহলে জাতিকে মেধাশূণ্য করে কখনোই স্মার্ট বাংলাদেশ গড়া যাবে না। শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল দেওয়ার দাবি এবং প্রত‍্যয় স্কিম বাতিল করার আহ্বান জানাই।

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, মেধাবী শিক্ষার্থীরাই এক সময় শিক্ষক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যোগদান করেন। কিন্তু এখন যে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় প্রত‍্যয় স্কিম চালু হয়েছে সেটা শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাবে এবং বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে।


মন্তব্য