কোটা বাতিলের দাবিতে

ক্লাস পরিক্ষা সহ একাডেমিক সকল কার্যক্রম বন্ধের ঘোষনা যবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের 

যবিপ্রবি
  © টিবিএম

কোটা পদ্ধতি বাতিল ও ২০১৮সালের পরিপত্র বহাল রাখার দাবিতে গত দুই দিন ধরে দফায় দফায় আন্দোলন করছেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা। এরই ধারাবাহিকতায় আজ শনিবার সকাল ৯:৩০ মিনিটের সময় সমাবেশের ডাক দেন সাধারণত শিক্ষার্থীরা।সমাবেশ শেষে আগামী ৭  দিন সকল ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রধান ফটকে সাময়িক সময়ের জন্য অবস্থান নিয়ে যশোর চৌগাছা স্বাধীনতা সড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রধানরাস্তা দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আলোচনা রাখেন।

পরবর্তী বৃষ্টির কারনে সাময়িক সময়ের জন্য কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করা হয়। বিক্ষোভ মিছিলে শিক্ষার্থীরা কোটার বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগানে ‘কোটা না মেধা? মেধা মেধা’, ‘আপস না সংগ্রাম, সংগ্রাম সংগ্রাম’, ‘আঠারোর পরিপত্র, পুনর্বহাল করতে হবে’, ‘কোটাপ্রথা নিপাত যাক, মেধাবীরা মুক্তি পাক’, ‘সারা বাংলায় খবর দে, কোটাপ্রথার কবর দে’, ‘আমার সোনার বাংলায়, বৈষম্যের ঠাঁই নাই’, ‘জেগেছে রে জেগেছে, ছাত্রসমাজ জেগেছে’ ইত্যাদি স্লোগান দেন সম্মিলিত কণ্ঠে।

উল্লেখ্য, কোটা বাতিলের দাবিতে গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মুখ সড়কে বিক্ষোভ করে যবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা এবং রাতে শহীদ মিনার চত্বরে মশাল জ্বালিয়ে মিছিল করে তারা। এব্যপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক তাদের মতামত পেশ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড.মো: ইমরান খান,স্যার বলেন
'সকল ক্ষেত্রে কোটা সংস্কার এখন সময়ের দাবী।'

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মো: মাসুম বিল্লাহ, স্যার বলেন:'আমি প্রবলভাবে অনুভব করি, বর্তমানে একমাত্র প্রতিবন্ধী কোটা (~1%) ব্যতীত অন্য কোন ধরনের কোটা-ই গ্রহণযোগ্য না। তাই, দেশের কল্যাণে আশু কোটা সংশোধন প্রয়োজন'।


মন্তব্য