'বাংলা ব্লকেড' কর্মসূচিতে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়
  © টিবিএম

সরকারি চাকরির সকল গ্রেডে (৯ম-২০তম) বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে শুধুমাত্র অনগ্রসর গোষ্ঠী, প্রতিবন্ধী ও মুক্তিযোদ্ধা কোটা সর্বোচ্চ ৫% রাখার দাবিতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বুধবার (১০ জুলাই) পূর্বঘোষিত 'বাংলা ব্লকেড ও বিক্ষোভ মিছিল' কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্ট সংলগ্ন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ও মহাসড়কে অবস্থান করে ব্লকেড তৈরি করেন। এসময় বৃষ্টি উপেক্ষ করে আন্দোলন চালিয়ে যান তারা।

আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা "কোটা না মেধা, মেধা মেধা", "জেগেছেরে জেগেছে ছাত্রসমাজ জেগেছে", " লেগেছেরে লেগেছে রক্তে আগুন লেগেছে", "একাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠো আরেকবার", "বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠায় নাই", "কোটাপ্রথা নিপাত যাক, মেধাবীরা মুক্তি পাক", "সারাবাংলায় খবর দে, কোটাপ্রথা কবরদে" স্লোগান দিতে থাকেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে স্পষ্ট লেখা আছে কোটা থাকবে অনগ্রসর জাতির জন্য। আমরা চাই বাংলাদেশ মেধাবীদের দ্বারা পরিচালিত হোক। শুধুমাত্র কোটা না থাকার কারণে একজন মেধাবী কেনো পিছিয়ে থাকবে। আমরা চাই এই কোটাকে যেনো সংস্কার করে ৫% এ নিয়ে আসা হয়। আর এটি যেনো নির্বাহী বিভাগ থেকে আইন পাশের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে কোটা প্রথা সংস্কারের আন্দোলনের পর সরকার সকল ধরণের কোটা বাতিল ঘোষণা করে। পরে ১ম ও ২য় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটাপদ্ধতি বাতিল করে পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। তবে ওই পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে এক রিটের প্রেক্ষিতে চলতি বছরের ৫ জুন পরিপত্রটিকে অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেয় উচ্চ আদালত।


মন্তব্য