‘নির্যাতনে অতিষ্ঠ’ তিন সন্তানকে বিষ খাইয়ে নিজেও খেলেন

গোপালগঞ্জে
  © সংগৃহীত

‘আমি মারা গেলে আমার বাচ্চারা সবার অযত্ন-অবহেলায় বেঁচে থাকবে। তাদের কষ্টের শেষ থাকবে না। তাই আমার সঙ্গে তাদেরও নিয়ে যেতে চাই।’ গোপালগঞ্জের শেখ সায়রা খাতুন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অষ্টম তলার মহিলা ওয়ার্ডের শয্যায় শুয়ে কথাগুলো বলছিলেন পলি বেগম।

বিষপানের বিষয়ে পলি বেগমের ভাষ্য, তাঁর স্বামী টিটো মোল্লা বাড়িতে থাকেন না। শাশুড়ি তাঁকে সব সময় শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করেন। পলি বেগমের বাবা নয়টি বিয়ে করেছেন বলে বাবার বাড়িতেও তাঁর কদর নেই। বাবার এতগুলো বিয়ে নিয়ে শাশুড়ি প্রায়ই তাঁকে কটু কথা শোনান। তিনি কারও কাছে কিছু বলতে পারেন না, এসব যন্ত্রণা সইতে পারছিলেন না। গতকাল শাশুড়ি তাঁকে বকাঝকা করতে থাকলে তিনি তিন মেয়েকে বিষ খাইয়ে পরে নিজে বিষপান করেন।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশে ‘বছরে ১ লাখ ৬১ হাজার প্রাণ কাড়ছে তামাক’

চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে মা ও তিন মেয়েকে উদ্ধার করে প্রথমে কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। তাঁদের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাতেই গোপালগঞ্জের শেখ সায়রা খাতুন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই রাতেই ছোট মেয়ে মীমের মৃত্যু হয়।

পলি বেগমের স্বামী টিটো মোল্লা বলেন, ‘আমি ঢাকায় একটি কোম্পানিতে চাকরি করি। তিন মেয়েকে নিয়ে স্ত্রী বাড়িতে থাকে। মা প্রায়ই স্ত্রীকে নির্যাতন করতেন বলে সে (স্ত্রী) আমাকে ফোনে বলত। কাল সকালেও মা তাকে নানাভাবে নির্যাতন করেছেন বলে জানিয়েছে। আমি ঢাকা থেকে বাড়ির উদ্দেশে দুপুরেই রওনা দিই। পথে জানতে পারি, আমার স্ত্রী তিন মেয়েকে বিষ খাইয়ে নিজেও খেয়েছে। ছোট মেয়ে মারা গেল। অন্য দুই মেয়ের কী হয়, আল্লাহই জানেন!’

গোপালগঞ্জের শেখ সায়রা খাতুন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সাবিকুন নাহার বলেন, নির্দিষ্ট সময় অতিক্রম না করা পর্যন্ত বলা যাবে না চিকিৎসাধীন তিনজন শঙ্কামুক্ত কি না।


মন্তব্য


সর্বশেষ সংবাদ