তেঁতুলিয়া উপজেলায় দ্রুত গতিতে চলছে বীর নিবাস নির্মাণের কাজ

তেঁতুলিয়া
  © সংগৃহীত

তেঁতুলিয়া উপজেলায় দ্রুত গতিতে চলছে বীর নিবাস নির্মাণের কাজ। মুজিববর্ষ উপলক্ষে উপজেলার ৩৯ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা পাচ্ছেন বীর নিবাস।

বৃহস্পতিবার (১ফেব্রুয়ারি) দুপুরে তেঁতুলিয়া উপজেলার করোনীপাড়া এলাকায় মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আলীর বীর নিবাস ঢালাই কাজে পরিদর্শণ করেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাকির হুসাইন, ঠিকাদার গোলাম ফারুক,সুরমা ট্রের্ডাস মহসিন আলী রবিউল ইসলাম,বীর মুক্তি যোদ্ধার বড় ছেলে আব্বাস আলী উপস্থিত ছিলেন।

ঠিকাদার গোলাম ফারুক,সুরমা ট্রের্ডাসের মহসিন আলী জানান,প্রতিটি ঢালাই কাজে আমরা উপস্থিত থাকি সপ্তাহে দুই তিনবার এসে তদারকি করি এবং উপজেলা থেকে প্রশাসনের লোক জন এসে কাজ দেখে জান।

মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধার বড় ছেলে আব্বাস আলী জানান,আমার বাবা মারা যাওয়ার ১৬দিন হয়েছে। আজ ছাদ ঢালাই কাজ চলছে,সরকারের দেওয়া এত সুন্দর ঘরে আমার বাবা থাকতে পারলো না আজ বাবা বেঁচে থাকলে খুবেই খুশি হতেন। তিনি আরোও জানান আমি উপস্থিত থেকে সব কাজ বুঝে নিচ্ছি যেহেতু ঢাকাই থাকতে এই সব কাজের সাথে জড়িত ছিলাম কাজের মান ভালো হচ্ছে ইট সিমেন্ট সব কিছু ভালো পাচ্ছি। 

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাকির হুসাইন জানান,মুজিব বর্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানার্থে তেঁতুলিয়া উপজেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধার ২০২১-২২ অর্থ বছরের আওতায়  অস্বচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন নির্মান প্রকল্পে ৩৯ টি ঘরের নির্মান কাজ চলচ্ছে। এই ৩৯টি ঘর ৫ টি প্যাকেজে টেন্ডার হয়।তার মধ্যে সুরমা ট্রেডার্স বোদা একটি, রাদোয়া রুফাইদা ট্রেডার্স বোদা একটি,বোদার সিদ্দিকুর রহমান নামে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নামে দুইটি প্যাকেজ,গোলাম ফারুক বোদা একটি প্যাকেজ পায়।

প্রতি ঘরের বরাদ্দ ১৪ লাখ ১০ হাজার টাকা করে ৩৯ ঘরের বরাদ্দ হচ্ছে ৫ কোটি ৪৯ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা ।প্রতিটি বীর নিবাসে ২টি বেড রুম, ১টি ডাইনিং রুম, ১টি রান্নাঘর এবং ২টি বাথরুম রয়েছে। বীর নিবাস নির্মাণ কাজ শেষ হলে শিঘ্রই আনুষ্ঠানিক ভাবে হস্তান্তর করা হবে।

তেঁতুলিয়া মন্ডলপাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউসুব আলী বলেন,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে ঘর দিয়েছে তার জন্য আমরা অনুতপ্ত,আমার তেমন সোয়ার ঘর নাই।ঘরটি দিয়ে সুন্দর হয়েছে।আমাদের পক্ষে এরকম ঘর বানানো সম্ভব ছিলোনা,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমার নেই।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যে সম্মান ও সুযোগ দিয়েছেন। জাতি সারা জীবন তা মনে রাখবে। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘ্যয়ূ কামনা করিএবং প্রতিটি মুক্তি যোদ্ধা যেন এরকম  একটি করেঘর পায়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন,মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আধুনিক বীরত্বপূর্ণ বাড়ি উপহার দিচ্ছেন। পর্যায়ক্রমে তালিকাভুক্ত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বীর নিবাস উপহার দেয়া হবে।


মন্তব্য