লোহাগাড়ায় জমি নিয়ে বিরোধে গৃহবধূকে মারধর-শ্লীলতাহানি, ভাশুরকে ছুরিকাঘাত

গৃহবধূ
  © ফাইল ছবি

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় এক গৃহবধূকে মারধর ও শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (২০ মার্চ) দুপুরে উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের কিল্লার আন্দর এলাকার মমতার বর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। এসময় ওই গৃহবধূকে রক্ষা করতে আসলে তার ভাশুর আব্দুর রহিমকে (৬০) ছুরিকাঘাত করে অভিযুক্ত মো. শহিদুল ইসলাম (৩৫)। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

পরে রাতে এ ঘটনায় অভিযুক্ত মো. শহিদুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে লোহাগাড়া থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে। এতে আরও ২-৩ জনকে অজ্ঞাতনামা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ওই ঘটনায় অভিযুক্ত আসামিকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। শহিদুল পার্শ্ববর্তী বাড়ির মৃত বদিউল আলমের ছেলে।

থানায় দায়ের করা এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ভুক্তভোগী গৃহবধূর নাম রোজিনা আক্তার (৪৫)। তার স্বামী আব্দুর রশিদ একজন প্রবাসী। তাদের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী বাড়ির শহিদুলের সঙ্গে দীর্ঘদিন যাবৎ জায়গাজমি ভোগদখল নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। ঘটনার দিন ওই জায়গায় বাউন্ডারি ওয়াল তৈরি করতে গেলে বাঁধা প্রদান করে অভিযুক্ত শহিদুল। এসময় তাদের মধ্যে বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে ওই গৃহবধূকে মারধর করে শহিদুল। এসময় তাকে শ্লীলতাহানিরও চেষ্টা করে তিনি।

এক পর্যায়ে তাকে রক্ষা করতে ঘটনাস্থলে আসেন ভাশুর আব্দুর রহিম। এসময় দেশীয় অস্ত্র (ছুরি) দিয়ে আব্দুর রহিমের পেটে আঘাত করে অভিযুক্ত শহিদুল। পরবর্তীতে আশপাশের লোকজন তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে আমিরাবাদ মা-মণি হাসাপাতালে এবং পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী রোজিনা আক্তার বলেন, আমার স্বামী বিদেশে থাকেন। বর্তমানে এ ঘটনায় আমিসহ আমার পুরো পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আর আমার ভাশুরকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে, উনি এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার কামনা করছি।

এ বিষয়ে শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে লোহাগাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খায়রুল ইসলাম বলেন, আসামী ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আশা করছি, দ্রুত সময়ের মধ্যেই আসামী গ্রেপ্তার করতে পারব।


মন্তব্য