স্থায়ী দোকানে টিসিবির পণ্য বিক্রির পরিকল্পনা

টিসিবি
  © ফাইল ছবি

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু বলেছেন, টিসিবির কার্ডধারীদের দুর্ভোগ ও ভোগান্তি লাঘবে ভবিষ্যতে স্থায়ী দোকানে টিসিবির পণ্য সরবরাহ করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। একজন দিনমজুর টিসিবির পণ্য নিতে তার সারা দিনের শ্রমঘণ্টা ব্যয় করেন। এতে তিনি ৭ থেকে ৮০০ টাকা আয় থেকে বঞ্চিত হন। এজন্য টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলাকে মডেল হিসেবে ধরে স্থায়ী দোকানে পণ্য সরবরাহের পরিকল্পনা রয়েছে।

আজ শুক্রবার টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে টিসিবির স্মাট কার্ড ও হুইল চেয়ার বিতরণ, ডিলার, বাজার সমিতি ও অংশীজনের সঙ্গে মতবিনিময়সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, টিসিবি অনেক বড় একটি কর্মযজ্ঞ। টিসিবি এদেশের মানুষের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের চাহিদা পূরণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারে। এজন্য ১৯৭২ সালে জাতির জনক বঙ্গবুন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান টিসিবি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। দেশে যে পণ্যগুলি উৎপাদন হয় না বিদেশ থেকে সেগুলো আমদানি করতে হয়। পণ্য আমদানি-রপ্তানি করার জন্য টিসিবি সৃষ্টি করা হয়েছিল।

আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, সারা দেশে ১ কোটি পরিবারের মধ্যে প্রতি মাসে টিসিবির মাধ্যমে বিভিন্ন পণ্য দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে নাগরপুরে রয়েছে ১৬ হাজার ৪২৯টি পরিবার।

নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রেজা মো. গোলাম মাসুম প্রধানের সভাপতিত্বে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী উপজেলার কলিয়া-সরিষাজানি রাস্তার উদ্বোধন করেন। পরে তিনি দুপুরে তেবাড়িয়া পাইকশা বাজার এবং তেবাড়িয়া মহারাজের দোকান হতে নদীর ঘাট পর্যন্ত রাস্তার ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন করেন। এ ছাড়া তিনি পরে দুর্বৃত্তদের হাতে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিহাদ খান ঝলকের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের শান্তনা দেন।


মন্তব্য