ধুনটে চিরকুট লিখে চুরির হিড়িক         

ধুনট
  © প্রতীকী ছবি

গ্রাহকের মিটার, সেচ পাম্প, ট্রান্সফরমারসহ বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চুরির ঘটনা বেড়েই চলছে বগুড়ার ধুনট উপজেলায়। গত এক মাসে মিটার, সেচ পাম্প ও ট্রান্সফরমার মিলিয়ে চুরি হয়েছে মোট ১৭টি, যার দাম প্রায় ১৪ লাখ টাকা। সব শেষে বৃহস্পতিবার (২ মে) রাতে উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামে তিনটি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। এর মধ্যে চিরকুট লিখে বিকাশে লেনদেনের আহ্বান জানিয়ে মিটার চুরির ঘটনাও রয়েছে।

থানা পুলিশ ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি (পবিস) সূত্রে জানা যায়, পল্লী বিদ্যুৎ থেকে সংযোগ নিয়ে গ্রাহকরা কৃষিজমিতে সেচকাজ, ধান ভাঙার মেশিন চালানোসহ বিভিন্ন যন্ত্র পরিচালনা করে থাকেন। দীর্ঘদিন ধরে দুর্বৃত্তরা এসব যন্ত্রে ব্যবহৃত বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চুরি করছে। সম্প্রতি ফসলের মাঠ কিংবা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চুরির হিড়িক পড়েছে। কিন্তু দুর্বৃত্তরা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে।ফলে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছের গ্রাহকরা।

উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের সেলিম রেজা বলেন, আমার ধান ভাঙার মেশিনের ১০-কেভিএ তিনটি ট্রান্সফরমারের ভেতরে থাকা মূল্যবান কোর ও কয়েল চুরি করে নিয়ে গেছে। এ ছাড়া কয়েক দিন আগে দুর্বৃত্তরা একই রাইস মিল থেকে মিটার চুরি করে চিরকুটে মোবাইল নম্বর (বিকাশ) লিখে রেখে যায়। সেই বিকাশ নম্বরে ছয় হাজার টাকা দিয়ে মিটার ফেরত পেয়েছি।

আগে ট্রান্সফরমার চুরি হলে সরকারের পক্ষ থেকে ভর্তুকি দেওয়া হতো। নতুন আইনে ট্রান্সফরমার চুরি হলে তার সম্পূর্ণ টাকা গ্রাহককে পরিশোধ করতে হচ্ছে। এমন আইনে আমরা গ্রাহকরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। উপজেলার মধুপুর গ্রামের নজরুল ইসলাম বলেন, আমার রাইস মিল থেকে মিটার চুরি করে চোরেরা মোবাইল নম্বর লেখা চিরকুট রেখে যায়। ওই নম্বরে পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে মিটার ফেরত নিয়েছি।

বর্তমান ডিজিটাল সময়ে বিভিন্ন বাহিনী আধুনিক যন্ত্রপাতির মাধ্যমে অপরাধীদের আটক করতে সক্ষম হচ্ছে। অথচ মিটার চোরদের আটক করতে পারছে না। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। পশ্চিম ভরণশাহী গ্রামের আদর্শ কৃষক সোনা উল্লাহ জানান, ফসলের মাঠ থেকে তার বিদ্যুৎচালিত সেচ পাম্প চুরি হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ করলেও সেচ পাম্পটি উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।  

পবিস-২ ধুনট আঞ্চলিক কার্যালয়ের এজিএম শামসুল হক বলেন, চুরি বন্ধে মাইকিং লিফলেট বিতরণসহ নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমরা গ্রাহকদের সচেতন হতে উদ্বুদ্ধ করার পাশাপাশি মিটার ও ট্রান্সফরমার পাহারার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।  

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈকত হাসান বলেন, বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চুরিসহ বিভিন্ন চুরি ও ছিনতাই রোধে পুলিশ কাজ করছে। সেই সাথে পুলিশি তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই আমরা কিছু সেচ পাম্প উদ্ধার করে গ্রাহকের হাতে পৌঁছে দিয়েছি। এ ছাড়া মিটার চোর চক্রের সদস্যদের শনাক্ত করা হয়েছে। দ্রুত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।


মন্তব্য


সর্বশেষ সংবাদ