মাস না যেতেই ভাঙছে কোটি টাকার সড়ক

মাদারীপুর
  © সংগৃহীত

মাদারীপুর সদর উপজেলার মহিষেরচর এলাকায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়ক নির্মাণের এক মাসের মধ্যে ফাটল দেখা দিয়েছে। এজিং ভেঙে হুমকির মুখে পড়েছে নির্মাণাধীন সাড়ে ৩ কিলোমিটার সড়ক। এতে করে নষ্ট হচ্ছে রাষ্ট্রীয় সম্পদ।

মাদারীপুর সদর উপজেলা এলজিইডি সূত্রে জানা গেছে, এডিপি’র অর্থায়নে মাদারীপুর সদর উপজেলার মহিষেরচর লঞ্চঘাট থেকে জাফরাবাদ সড়কের সাড়ে ৩ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করা হয় এক মাস আগে। সড়কের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় প্রায় দুই কোটি টাকা।সড়কের নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যে সড়কের বিভিন্ন স্থানে দেখা দিয়েছে ফাটল। সামান্য বৃষ্টিতেই কোনও কোনও স্থানে কার্পেটিং উঠে এজিং ভেঙে গেছে।

কাজে নিম্ন মানের ইট, খোয়া, পাথর, বালু প্রভৃতি ব্যবহার করার কারণে বিভিন্ন স্থানে সড়ক উঁচু-নিচু হয়ে দেবে গেছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন। এ ছাড়াও পাকা সড়কের দুই পাশে কমপক্ষে ৩ ফুট মাটি থাকার কথা। অথচ অধিকাংশ সড়কেই এই নিয়ম মানা হয়নি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সড়কের বিভিন্ন অংশের এজিং ভেঙে খালের ভেতরে চলে গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, কয়েকদিন আগে একটি ট্রাক গেছে। সেই চাকায় সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে গেছে সড়ক নির্মাণের এক মাস না পেরোতেই।

স্থানীয় বাসিন্দা রাকিবুল ইসলাম বলেন, কয়েকদিন আগে নির্মাণ করেছে সড়ক অথচ এখনই ভেঙে গেছে। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। কর্তৃপক্ষের উচিত তদন্ত করে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া। এভাবে রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট করা ঠিক না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যবসায়ী বলেন, সড়ক নির্মাণের কয়েকদিন পর বিভিন্ন স্থানে গর্ত হয়ে দেবে গেছে। অনেক স্থান উঁচু-নিচু হয়ে গেছে। কাজ করার সময় ঠিকাদার সঠিক নিয়মে ইট, বালু ব্যবহার করেননি। পুরাতন ইট তুলে তার উপরে বিটুমিন (পিচ) ঢেলে রোলার দিয়ে ঠিকমতো সমান না করেই কার্পেটিং করায় রাস্তার এই অবস্থা হয়েছে। সড়কের ঠিকাদার মো. খোকন এই বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি। তিনি উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।

এলজিইডি’র মাদারীপুর সদর উপজেলা প্রকৌশলী মনোয়ার হোসেন বলেন, যেসব স্থানে ভেঙে গেছে সেখানে মাটি ফেলে মেরামত করা হবে। নিম্নমানের কাজের অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেছেন।


মন্তব্য