সাগর উত্তাল, ঝুঁকি সত্ত্বেও সৈকতে নামছেন পর্যটকরা

কক্সবাজার
  © সংগৃহীত

গতকাল রবিবার (২৬ মে) রাত আটটার পর থেকেই দেশের উপকূলে তাণ্ডব চালিয়েছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রিমাল। এর প্রভাবে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের ১৯ জেলার ৩৭ লাখ ৫৮ হাজার ৯৬ জন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. মুহিববুর রহমান।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে বর্তমানে সাগর উত্তাল রয়েছে। জোয়ারের পানির উচ্চতা স্বাভাবিকের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়ে কূলে আঘাত হানছে। এমন পরিস্থিতিতেও ঝুঁকি নিয়ে সমুদ্রে গোসল করতে নামছেন পর্যটকেরা।

আজ সোমবার (২৭ মে) কক্সবাজার লাবনী পয়েন্টে সরেজমিনে এমন চিত্র দেখা গেছে।

দেখা গেছে, বৈরী পরিবেশের মধ্যেও সুগন্ধা পয়েন্টে ৪০ থেকে ৫০ জন পর্যটক ঝুঁকি নিয়ে সমুদ্রে গোসল করতে নামছেন। ট্যুরিস্ট পুলিশ, লাইফগার্ড কর্মীরা নানাভাবে চেষ্টা করেও তাদের সমুদ্র থেকে তুলে আনতে পারছে না।

পর্যটকরা জানান, তারা ঘুরতে গিয়েছেন। তাই সবাইকে নিয়ে গোসল করতে নামেন তারা।

এ বিষয়ে সি সেফ লাইফগার্ডের কর্মকর্তা জয়নাল আবদিন ভুট্টু বলেন, এই মুহূর্তে সাগর খুবই উত্তাল। বাতাসের গতি বেড়েছে ও ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এ সময় সাগরে রিপ কারেন্ট সৃষ্টি হয়। তাই গোসল করা বিপদজনক। আমরা বিষয়টি ম্যাজিস্ট্রেট স্যারকে জানিয়েছি।

কক্সবাজার পর্যটক সেলের ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা বলেন, পর্যটকদের মধ্যে যারা গোসল করছিলেন তাদের সাগর থেকে উঠানো হয়েছে। এরপরও যারা সাগরে নামবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তথ্যসূত্র: আরটিভি


মন্তব্য