পারমাণবিক বিদ্যুৎ শিগগির জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

বিদ্যুৎ
  © ফাইল ছবি

দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রচলিত জ্বালানির সঙ্গে হাইড্রোজেন, এমোনিয়াকেও জ্বালানি হিসেবে কীভাবে ব্যবহার করা যায় তা নিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ কাজ করছে। অনশোর ও অফশোর বায়ু বিদ্যুৎ নিয়েও এগোচ্ছি আমরা। আমাদের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য সাশ্রয়ী মূল্যে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দেওয়া।

আজ সোমবার (২৯ জানুয়ারি) বিদ্যুৎ ভবনে এক কর্মশালায় তিনি এ কথা জানান।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, পারমাণবিক বিদ্যুৎ অচিরেই গ্রিডে আসবে। নবায়নযোগ্য উৎস থেকে প্রায় ১২ হাজার ৪৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের কার্যক্রম বিভিন্ন পর্যায়ে। সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও গ্রিড সিংকোনাইজেশনকেও বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি ও অর্থায়ন সংক্রান্ত কৌশলগত গবেষণা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ব্লুমবার্গ এনইএফ বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনের বিভিন্ন উৎস ও তার মূল্য নিয়ে কর্মশালা করে। ব্লুমবার্গের এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রধান ড. আলী ইজাদী, দক্ষিণ এশিয়ার মার্কেট লিডার ইসু কিকুমা ও সিনিয়র অ্যাসোসিয়েট তারুণ বালাকৃশনান ব্লুমবার্গ’র পক্ষে গবেষণাপত্র উপস্থাপন করেন।

তারা নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারে ইউটিলিটি স্কেলে নবায়নযোগ্য জ্বালানিকে সহায়তা করা, রূপটপ ও ভাসমান সোলার ব্যবহার বাড়ানো এবং ক্লিন প্রযুক্তির চাকরির জন্য প্রশিক্ষণের ওপর গুরুত্ব দেন।

তারা বলেন, কয়লার সঙ্গে এমোনিয়া বা প্রাকৃতিক গ্যাসের সঙ্গে হাইড্রোজেনের মিশ্রণে কার্বন নিঃসরণ কমানো গেলেও মূল্য অনেক বেশি পড়বে। অথচ সোলারের সঙ্গে ব্যাটারি বা বায়ুর সঙ্গে ব্যাটারি ব্যবহার অনেকটা সাশ্রয়ী।


মন্তব্য


সর্বশেষ সংবাদ