পাঁচ দিনে অর্ধেকে নামলো পেঁয়াজের দাম!

সবজি
  © ফাইল ছবি

প্রতিবার রমজান মাস আসলেই বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির হিড়িক লেগে যায়। কাঁচা সবজি থেকে শুরু করে প্যাকেটজাত পণ্য, সবখানেই যেন বাড়তি থাকে মূল্য। এবারও তার ব্যতিক্রম কিছু ঘটেনি। রমজানের শুরুতে বাজারে সকল পণ্যের দামই নাগালের বাইরে ছিল। তবে ধীরে ধীরে কমতে শুরু করেছে এসকল পণ্যে দাম।

এবার রমজানকে ঘিরে পাঁচ দিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম প্রায় অর্ধেক কমেছে পাবনার সুজানগর ও সাঁথিয়ার পাইকারি বাজারে। যে পেঁয়াজ গত বুধবার (১৩ মার্চ) তিন হাজার থেকে তিন হাজার ২০০ টাকা মণের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে, সেই পেঁয়াজ সোমবার (১৮ মার্চ) এক হাজার ৬০০ থেকে এক হাজার ৮০০ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি করতে দেখা যায়।

স্থানীয় কৃষক ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা জানান, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী রমজান মাসে বেশি দামে বিক্রির আশায় পেঁয়াজ মজুত করেছিলেন। সেই পেঁয়াজ এখন বাজারে এসেছে। আবার কৃষকরাও নতুন পেঁয়াজ বাজারে বিক্রির জন্য তুলতে শুরু করেছেন। তাতে বাজারে সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় এই দরপতন ঘটেছে।

জানা যায়, সুজানগর উপজেলায় প্রতি রোববার ও বুধবার পাইকারি পেঁয়াজের হাট বসে। গত বুধবার (১৩ মার্চ) এই হাটে প্রতি মণ পেঁয়াজ ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হয়। এরপর থেকেই পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করে। রোববার এই হাটে প্রতি মণ পেঁয়াজ এক হাজার ৬০০ থেকে এক হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়। দাম কমে যাওয়ায় বহু কৃষক পেঁয়াজ বিক্রি না করে বাড়িতে ফিরে গেছেন।

সাঁথিয়া উপজেলার আতাইকুলা হাটেও মিলেছে একই চিত্র। রোববার এ হাটে প্রতি মণ পেঁয়াজ দেড় হাজার থেকে এক হাজার ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। দাম না পেয়ে অনেক কৃষক হতাশ হয়ে বিক্রির জন্য আনা পেঁয়াজ নিয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন। দাম কমে যাওয়ায় দুই উপজেলার পেঁয়াজ চাষিদের মধ্যে হতাশা তৈরি হয়েছে। দাম আরও কমে গেলে লোকসানের আশঙ্কা করছেন তারা।

পেঁয়াজের দাম কমে যাওয়ার বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. জামাল উদ্দিন বলেন, হঠাৎ করে সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় দাম কমে গেছে। তবে বর্তমানে যে দামে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে, তাতে কৃষকের লোকসান হবে না।

চলতি মৌসুমে ৯ হাজার ৭৬৫ হেক্টর জমিতে মুড়িকাটা জাতের পেঁয়াজের আবাদ হয়েছিল। উৎপাদন হয়েছে এক লাখ ১৮ হাজার ৮৮৮ মেট্রিক টন। এ পেঁয়াজ ইতিমধ্যেই বিক্রি হয়ে গেছে।

অন্যদিকে হালি পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে ৫৩ হাজার ২৭৫ হেক্টর জমিতে। বর্তমানে এই পেঁয়াজ বাজারে আসছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিক টন।

 


মন্তব্য