১৬ হাজার স্কুলছাত্রীকে বাইসাইকেল দেবে সরকার; ব্যয় ২৫ কোটি

বাইসাইকেল
  © ফাইল ছবি

বর্তমানে দেশে নারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা আশাব্যঞ্জকভাবে বাড়ছে। নারী শিক্ষা আরও উৎসাহিত করতে ও যাতায়াত সমস্যা দূর করে স্কুলে মেয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি আরও বাড়াতে নতুন একটি পাইলট প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। ‘কিশোরী ক্ষমতায়নে স্কুলগামী ছাত্রীদের বাইসাইকেল প্রদান’— শীর্ষক এ প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিকভাবে সারাদেশের ১৬ হাজার স্কুলছাত্রীর মধ্যে বাইসাইকেল বিতরণ করবে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর। 

চলতি বছরেই ২৫ কোটি টাকার এ বাইসাইকেল বিতরণ কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রস্তাবিত প্রকল্প নিয়ে ইতোমধ্যে পরিকল্পনা কমিশনে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ২ এপ্রিল। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কেয়া খান জানিয়েছেন, প্রকল্পটি চলতি বছরের জুলাইয়ে শুরু হবে এবং চলবে ২০২৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত।

দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্রীদের স্কুলে যাতায়াতকে নিরাপদ ও সহজ করা ছাড়াও প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পেছনে আরও যে উদ্দেশ্যগুলো রয়েছে সেগুলো হলো— এর মাধ্যমে নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রম নিশ্চিতকরণে সহায়তার মাধ্যমে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা, স্কুলগামী ছাত্রীদের ঝরে পড়া রোধ করার মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্ন শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখা, স্কুলগামী ছাত্রীদের আত্মবিশ্বাস ও সক্ষমতা বৃদ্ধি করে নেতৃত্বের মনোভাব সৃষ্টি করা।

জানা গেছে, সাইকেল বিতরণের ক্ষেত্রে সরকারি স্কুলগুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। সেইসঙ্গে ছাত্রীদের মেধা, দারিদ্র্য ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক চলকের ওপর স্কোরিং করে তার ভিত্তিতে উপকারভোগী নির্বাচন করা হবে।

প্রকল্পের উপকারভোগী নির্ধারণের জন্য উপজেলা পর্যায়ে নির্দিষ্ট ফরম্যাট বা ক্রাইটেরিয়া অনুসরণ করে ছাত্রীদের তালিকা তৈরি করা হবে। এর জন্য উপকারভোগী বাছাই কমিটিতে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা, লোকাল থানার পরিবর্তে সংশ্লিষ্ট থানার ওসি এবং ইউনিয়নের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও পৌরসভার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মেয়রকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

এ প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিকভাবে দেশের আট বিভাগের আটটি জেলার ৪৮টি উপজেলায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীরা বাইসাইকেল পাবে। 

প্রাথমিকভাবে রাজবাড়ী, খাগড়াছড়ি, সুনামগঞ্জ, জামালপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, ঝিনাইদহ ও বরগুনায় এই বাইসাইকেল দেওয়া হবে। এটি সফল হলে পরবর্তীতে সারাদেশে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানিয়েছে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর।


মন্তব্য