দুই হাত ও ডান পা নেই, বাঁ পায়ে লিখে পরীক্ষা দিচ্ছে রাসেল

নাটোরে
  © সংগৃহীত

নাটোরের রাসেল মৃধা (১৯) জন্ম থেকেই নেই দুই হাত ও ডান পা। তবু থেমে নেই রাসেল; রোববার থেকে শুরু হওয়া আলিম পরীক্ষা দিচ্ছেন বাম পা দিয়ে লিখে।

রোববার সকাল ১১টার দিকে নাটোর শহরের আল মাদরাসাতুল জমহুরিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, রাসেলের দুই হাত নেই। ডান পা নেই। রয়েছে একমাত্র বাম পা। তবে তা স্বাভাবিক আকারের চেয়ে অনেক ছোট। শারীরিক সক্ষমতার দিক দিয়ে পিছিয়ে থাকলেও পড়াশোনায় প্রবল আগ্রহ তার। তাই তো পায়ের আঙুলের ফাঁকে কলম রেখে আলিম পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থী রাসেল মৃধা।

রাসেল সিংড়া পৌরসভার শোলাকুড়া মহল্লার দিনমজুর আব্দুর রহিম মৃধার ছেলে ও শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার ছাত্র। অভাব-অনটনের মধ্যেও প্রতিবন্ধী রাসেল মৃধার লেখাপড়ার প্রতি আলাদা আগ্রহ দেখে তার দরিদ্র মা-বাবা হাল ছাড়েননি। তার উচ্চশিক্ষার সেই স্বপ্ন আজ পূরণ হতে চলেছে।

আব্দুর রহিম মৃধা বলেন, ‘লেখাপড়ার প্রতি ছেলের আগ্রহ দেখে দিনমজুরি করে পড়াশোনা করাচ্ছি। লেখাপড়া শিখে ছেলে একদিন আমাদের মুখ উজ্জ্বল করবে।’

এর আগে সে পায়ে লিখে দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৩ দশমিক ৮৮ পেয়ে উত্তীর্ণ হওয়ার খবর পেয়ে তৎকালিন নাটোরের জেলা প্রশাসক (বর্তমানে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক) শামীম আহম্মেদ মিষ্টি ও ফুল নিয়ে রাসেলের বাড়ি গিয়ে তাকে ও তার পিতামাতাকে শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি তার লেখাপড়া চালিয়ে নেওয়ার জন্য উৎসাহ দিয়েছেন। 

শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোতাররফ হোসেন বলেন, ‘রাসেল মৃধা বিগত পরীক্ষাগুলোতেও কৃতিত্বের সঙ্গে পাস করেছে। আমরা আশাবাদী, রাসেল এবারও ভালো ফলাফল অর্জন করবে। লেখাপড়া শিখে প্রতিষ্ঠিত হয়ে সে সারা দেশের প্রতিবন্ধী শুধু নয় সব মানুষের কাছে দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করবে। ’

আল মাদরাসাতুল জমহুরিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব লক্ষ্মীপুর আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা জয়নাল আবেদীন জানান, রাসেল মৃধার চেষ্টা ও চমৎকার লেখা দেখে তিনি অভিভূত হয়েছেন। তিনি তার সফলতা কামনা করেন। 


মন্তব্য