কানে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক লাল 'কেফিয়াহ' পরে নজর কাড়লেন বেলা হাদিদ

বেলা হাদিদ
  © ইন্সটাগ্রাম থেকে (সংগৃহীত)

ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত মার্কিন সুপার মডেল বেলা হাদিদ। আরেক সুপার মডেল জিজি হাদিদের বোন তিনি। তাঁদের বাবা মোহামেদ হাদিদ ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক। ফিলিস্তিনিদের দুর্দশা নিয়ে দুই বোন সব সময়ই সরব। এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে তো বটেই, মডেলিং জগতেও তাঁদের চাপে পড়তে হয়েছে। এমনকি জীবনের হুমকিও পেয়েছেন এই দুই বোন। কিন্তু ফিলিস্তিনি রক্তের সম্পর্ক তো তাঁরা ভুলতে পারেন না! রক্তের দায় মেটাতে বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে যেমন সরব থাকেন, আবার ফিলিস্তিনের গাজায় অবরুদ্ধ মানুষদের জন্য নিয়মিত মোটা অঙ্কের অনুদানও পাঠান।

সম্প্রতি ফ্রান্সে কান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে হাজির হয়েছিলেন বেলা হাদিদ। আর সেখানেই ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক লাল কেফিয়াহ দিয়ে বানানো পোশাকে নজর কেড়েছেন বেলা। স্বাধীনতাকামী ফিলিস্তিনিদের দূত হয়ে যেন ফ্রান্সের কান সৈকত থেকে দ্যুতি ছড়ালেন বেলা!

ইনস্টাগ্রামে ছবিগুলো শেয়ার করে বেলা হাদিদ লিখেছেন, ‘ফ্রি প্যালেস্টাইন ফরেভার’। শিরোনামের সঙ্গে পোশাকের একটি ছবিও পোস্ট করেছেন।

এ সাহসী উদ্যোগের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশংসায় ভাসছেন বেলা হাদিদ। এক্স হ্যান্ডলে একজন লিখেছেন, ‘ফিলিস্তিনি শিকড়ের প্রতি তাঁর এই ভালোবাসায় মুগ্ধ।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘ফ্যাশনের সঙ্গে বিশ্ববাসীকে বার্তা দিয়ে বেলা নিজের শিকড়ের প্রতি সম্মান জানিয়েছেন।’

বেলার পোশাকটি ডিজাইন করেছেন ডিজাইনার জুটি মাইকেল এবং হুশি। এর আগে ২০০১ সালে ‘সেক্স অ্যান্ড দ্য সিটি’র সিজন ফোরের একটি পর্বে ক্যারি ব্র্যাডশোর পরা কালো এবং সাদা কেফিয়াহ টপের নেপথ্যেও ছিলেন এই জুটি।

ফিলিস্তিনি বাবা মোহামেদ হাদিদ এবং মার্কিন মা ইয়োলান্ডা হাদিদের সন্তান বেলা। মডেলিংয়ের দুনিয়ায় মা ও বোন জিজি হাদিদ বেশ প্রভাবশালী। বাবা বড় ব্যবসায়ী। বেলার পুরো নাম ইসাবেলা খাইরিয়াহ হাদিদ। ক্যারিয়ারে ১৯ বার ভোগ ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ হয়েছেন। ২০২২ সালে ব্রিটিশ ফ্যাশন কাউন্সিল তাঁকে ‘মডেল অব দ্য ইয়ার’ খেতাব দেয়। ২০২৩ সালে বিশ্বের ১০০ প্রভাশালী ব্যক্তির তালিকায় স্থান করে নেন বেলা হাদিদ।


মন্তব্য


সর্বশেষ সংবাদ