আমেরিকায় শ্রাবন্তী-চঞ্চলদের হোটেলে আগুন; আতঙ্কে উড়লো ঘুম!

আগুন
  © ফাইল ছবি

নর্থ আমেরিকান বেঙ্গলি কনফারেন্সের আয়োজনে ফিল্মফেয়ার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বর্তমানে আমেরিকায় অবস্থান করছেন টালিউড অভিনেতারা। তবে এর সঙ্গে রয়েছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীও। তাঁরা সবাই উঠেছেন শিকাগোর একটি পাঁচতারা হোটেলে। কিন্তু হঠাৎ তীব্র অ্যালার্মে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। জানা যায়, হোটেলের কোনো একটি রুমে আগুন লেগেছে।    

আমেরিকায় তখন ভোর সাড়ে পাঁচটা। কেউ কেউ গভীর ঘুমে, কারও সবে ঘুম ভাঙবে ভাঙবে। তাঁদের কারও অস্থায়ী ঠিকানা পাঁচ তলায়, আবার কারও ছয় তলায়। হঠাৎ আগুন লাগার সাইরেন বাঁজায় জেগে উঠেছেন সবাই। শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়, সোহিনী, স্বস্তিকা থেকে চঞ্চল চৌধুরী—প্রাণ বাঁচানোর জন্য আতঙ্কিত সবাই! অধিকাংশ শিল্পী সিঁড়ি ভেঙে ছুটেছেন নীচ তলায়। হ্যাঁ, আমেরিকায় অনুষ্ঠানে অংশ নিতে গিয়ে হোটেলে এভাবেই অগ্নিকাণ্ডের মুখোমুখি হলেন তারকারা। আতঙ্কে গা শিউরে ওঠে সবার।

এই অগ্নিকাণ্ডের ভয়াবহ অভিজ্ঞতা জানিয়ে নির্মাতা অরিন্দম শীল বলেন, ‌‘ভালো করে চোখ মেলতে পারিনি। হঠাৎ অ্যালার্মের শব্দে ধড়মড়িয়ে উঠে বসি। খাটে রাজ্যের জিনিসপত্র ছড়ানো। কিন্তু গোছাবে কে? আগে জিনিস না আগে প্রাণ?’

তিনি জানান, গরম পোশাক গায়ে জড়ানোর সময়টুকুও পাননি তাঁরা। ওই অবস্থাতেই পাঁচ তলা থেকে এক তলায়! অরিন্দম আরও জানিয়েছেন, সবচেয়ে খারাপ অবস্থা অভিনেত্রী মমতাশঙ্করের। তিনি না পারছেন সিঁড়ি ভাঙতে, না পারছেন কোথাও দাঁড়াতে। ব্যথা নিয়ে কোনো মতে এক পা এক পা করে সিঁড়ি বেয়ে নেমেছেন।

কথা বলেছেন পরিচালক কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ও। সম্প্রতি তাঁর পরিচালনায় ‘অযোগ্য’ ছবিটি দর্শকের পছন্দের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। সাফল্যের সেই স্বাদ উপভোগ করতেই সস্ত্রীক পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশে। কৌশিকের কথায়, ‘আমরা সবাই হইহই করতে করতে সিঁড়ি দিয়ে নামলাম। প্রত্যেকে কিংকর্তব্যবিমূঢ়। সকলের একটাই চিন্তা, যে করে হোক প্রাণে বাঁচতে হবে।’

এমন ভয়ের মাঝেই মজার কাণ্ড! প্রাণ হাতে করে নীচে নামার পর হঠাৎ এক প্রবাসী বাঙালি বেজায় খুশি পরিচালক অরিন্দমকে দেখে। তিনি হাসতে হাসতে তাঁর কাছে এসে বললেন, ‘এত খারাপের মধ্যেও একটা ভালো যে, আপনাকে কাছে থেকে দেখতে পেলাম। চলুন, সেলফি তুলি?’ গণমাধ্যমে এ কথা বলে হাসলেন অরিন্দম নিজেও।

তিনি জানালেন, সবাই এখন নিরাপদে রয়েছেন। ফায়ার অ্যালার্ম বাজতেই নিয়ম মেনে সিঁড়ি বেয়ে এক্সিট নেন তাঁরা। মিনিটের মধ্যেই হাজির দমকল। সঙ্গে সঙ্গেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। সকলকে নিয়ে যাওয়া হয় নিরাপদ স্থানে।
সূত্র: আনন্দবাজার


মন্তব্য