সাড়ে ৩ হাজার বানরের দখলে শহর; ভুতুড়ে শহরে পরিণত হওয়ার ঝুঁকিতে

থাইল্যান্ড
  © নিউ ইয়র্ক পোস্ট

মধ্য থাইল্যান্ডের লোপবুরি শহরটিকে রীতিমতো ভূতুড়ে শহরে পরিণত করছে একদল বানর। প্রায় সাড়ে ৩ হাজার বানর এই শহরটিকে এমনভাবে জেকে ধরেছে যে পর্যটকরা আর সেখানে যাচ্ছেন না। এমনকি ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছে ব্যবসায়ীরা।

গতকাল শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের বরাত দিয়ে নিউ ইউর্ক পোস্ট জানিয়েছে, এই সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত চীনা বিনিয়োগকারীরা তাদের অর্থ আটকে রেখেছে।

সাউথ চায়না মর্নিয় পোস্ট জানিয়েছে, লোববুরি শহরে এখন কমপক্ষে সাড়ে ৩ হাজার বানরের বাস। পিংয়া শপিং সেন্টারের প্রতিনিধি সুরাচত চানপ্রাসিত বলেন, ‘বানররা প্রায়ই প্রতিষ্ঠানে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং কেনাকাটা করতে আসা গ্রাহকদের হয়রানি করে।’

বেশির সময়েই দোকানের সামনের অংশ ভাঙচুর করে বানরেরা। সেসব মেরামত করতে দোকানমালিকদের আবার অতিরিক্ত টাকা খরচ করতে হয়। বাধ্য হয়ে দোকান মালিকেরা ব্যবসা বন্ধ করে শহর ছেড়ে চলে গেছেন।

এক সময়ের বাণিজ্যনগরী হিসেবে পরিচিত ছিল লোপবুরি। এর বাজারের অর্থনীতির আকার ছিল অন্তত ১০ কোটি বাথ (থাইল্যান্ডের মুদ্রা)। এখন তা ৭ কোটি বাথে নেমে এসেছে। বানরের উৎপাতে স্থানীয়রা শপিং মলে যেতে উৎসাহ পান না। তাই দোকান মালিকেরা ইজারা বাতিল করে চলে যাচ্ছেন। দোকানিদের ধরে রাখতে শপিং মলের মালিকেরা দোকান ভাড়াও কমিয়ে দিয়েছেন। তবু শেষ রক্ষা হচ্ছে না। একের পর এক দোকান ছেড়ে দিয়ে চলে যাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।

লোপবুরি চেম্বার অব কমার্স অভিযোগ করে বলেছে, ভবনগুলোর উচ্চতা সীমিত করার আইন এবং ঐতিহ্যগত স্থাপনাগুলো যে অবস্থায় আছে, সেই অবস্থাতেই রাখতে গিয়ে বানরের উৎপাত আরও প্রকট হয়ে উঠেছে।

লবি গ্রুপের প্রধান পংসাতর্ন চাইচানাপানিচ বলেন, বাণিজ্য নগরী লোপবুরির অর্থনীতি আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে এবং পর্যটকদের সংখ্যা বাড়াতে হলে আইন সংশোধন করতে হবে।

কিন্তু বানরের কারণেই এক সময় পর্যটকদের কাছে প্রিয় হয়ে উঠেছিল এ শহর। প্রচুর পর্যটক এ শহরে আসতেন, বানরদের খাওয়াতেন ও সেলফি তুলতেন। এ অঞ্চলে বার্ষিক বানর উৎসবও অনুষ্ঠিত হয়।


মন্তব্য


সর্বশেষ সংবাদ