৭ অক্টোবর ইসরায়েলের জন্য অমানবিকতার লাইসেন্স হতে পারে না: ব্লিংকেন

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন
  © ফাইল ছবি

গত বছরের ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের যোদ্ধারা ইসরায়েলের অভ্যন্তরে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে ১১০০ জনের মতো নিহত হয়। এছাড়া ২৪০ জনের মতো লোককে জিম্মি করে নিয়ে যায়। তবে হামাসের এই নজিরবিহীন হামলা ইসরায়েলের জন্য গাজায় অমানবিকতার লাইসেন্স হতে পারে না বলে জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন তেল আবিবে এক প্রেস কনফারেন্সে এই মন্তব্য করেন।

গত ৭ অক্টোবর যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর গাজার পরিস্থিতি নিয়ে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে এটিই আমেরিকার সবচেয়ে কঠোর সমালোচনা বলে মনে করা হচ্ছে।

ব্লিংকেন বলেন, “৭ অক্টোবর ইসরায়েলিদের সঙ্গে সবচেয়ে ভয়ঙ্করভাবে অমানবিক আচরণ করা হয়েছে। এরপর থেকে জিম্মি সঙ্গে প্রতিদিনই অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। কিন্তু এটি অন্যদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ করার জন্য ইসরায়েলের লাইসেন্স হতে পারে না।”

ব্লিংকেন আরও বলেন, “৭ অক্টোবরের হামলার সঙ্গে গাজার অধিকাংশ মানুষের কোনও সম্পর্ক নেই।” 

প্রসঙ্গত, ৭ অক্টোবরের পর থেকে গাজায় অমানবিক হামলা চালিয়ে যাচ্ছে দখলদার ইসরায়েল। তাদের নৃশংস হামলা থেকে রেহাই পাচ্ছে না কিছুই। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ইসরায়েলি হামলায় ২৭ হাজার ৭০৮ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে অধিকাংশই শিশু। এছাড়া আহত হয়েছেন ৬৭ হাজারের অধিক মানুষ।

গাজায় ইসরায়েলি দখলদার বাহিনীর হাত থেকে কোন কিছুই রেহাই পাচ্ছে না। নির্বিচারে গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে দেশটি। এমনকি ফিলিস্তিনিদের ভেড়ার ওপরেও তাণ্ডব চালিয়েছে দখলদার দেশটির সেনাবাহিনী। বুধবার কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনিদের ভেড়াকে গুলি করে হত্যা করেছে ইসরায়েলি সেনারা। দক্ষিণ গাজার যুদ্ধবিধ্বস্ত খান ইউনিসের সড়কে এ ভেড়ার পাল বিচরণ করছিল। এ সময় সেনারা এগুলোকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে হত্যা করেছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে এ ঘটনার ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। পরে তা দ্রুততম সময়ের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

ভিডিওর ক্যাপশনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলি স্নাইপার বাহিনী এ ভেড়ার পালকে হত্যা করেছে। এসব ভেড়া কি খামাস (সহিংসতা) করেছিল।

সূত্র: আল জাজিরা


মন্তব্য