অরুণাচল চীনের নয়, ভারতের রাজ্য : যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক
  © সংগৃহীত

অরুণাচল নিয়ে ভারত-চীনের ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যেই অঞ্চলটিকে ভারতের রাজ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া রাজ্যেটিতে চীনের আঞ্চলিক দাবির দৃঢ় বিরোধিতা জানিয়েছে দেশটি।

বুধবার (২০ মার্চ) এক বিবৃতিতে প্রদেশটি নিয়ে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর। খবর রয়টার্সের।

অরুণাচল নিয়ে গত কয়েক দশক ধরে ভারত ও চীনের মধ্যে চলমান দ্বন্দ্বের মধ্যেই নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করল যুক্তরাষ্ট্র।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অরুণাচল প্রদেশকে ভারতের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দিচ্ছে এবং লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল পেরিয়ে এই অঞ্চলে যেকোনো ধরনের অনধিকার প্রবেশের বিরোধীতা করছে।

এবার জাহাজ কোম্পানির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞাএবার জাহাজ কোম্পানির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা
হিমালয় পার্বত্য অঞ্চলের পশ্চিমাংশের এক পাশে চীনের স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চল তিব্বত, অন্যপাশে অরুণাচল রাজ্য। তিব্বত-অরুণাচল সীমান্তের দৈর্ঘ্য ৩ হাজার কিলোমিটার।

চীন অরুণাচল প্রদেশকে দক্ষিণ তিব্বতের অংশ বলে দাবি করে, যার বিরোধীতা করে আসছে ভারত। মঙ্গলবার ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, চীন অরুণাচল প্রদেশ নিয়ে উদ্ভট দাবি করে আসছে এবং অঞ্চলটি সবসময়ই ভারতের ছিল এবং থাকবে।

মূলত গত শতকের ষাটের দশক থেকে অরুণাচলকে নিজেদের ভূখণ্ড বলে দাবি করে আসছে চীন। এ ইস্যুতে পরমাণু শক্তিধর দুই প্রতিবেশী দেশ ভারত ও চীনের দেশের মধ্যে প্রথম যুদ্ধটি হয়েছে ১৯৬২ সালে, সর্বশেষ যুদ্ধ হয়েছে ২০২০ সালে। সর্বশেষ যুদ্ধে ২০ জন ভারতীয় ও ৪ জন চীনা সেনা নিহত হয়েছিলেন।

এরপর থেকে অরুণাচল-তিব্বত সীমান্ত এলাকায় বিপুল সংখ্যক সেনা মোতায়েন করেছে দুই দেশই।

২১০০ সালের মধ্যে বিশ্বের সব দেশে কমবে জনসংখ্যা২১০০ সালের মধ্যে বিশ্বের সব দেশে কমবে জনসংখ্যা
বিশ্লেষকরা বলছেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এশিয়ান এবং ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নত করছে।


মন্তব্য