ফিলিস্তিনপন্থী পোস্টে লাইক দিয়ে চাকরি হারালেন ভারতের এক শিক্ষিকা

ফিলিস্তিন
  © সংগৃহীত

গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় নৃশংস ও বর্বর হামলা চালাচ্ছে দখলদার ইসরায়েল। সাত মাসের অধিক সময় ধরে চলমান হামলায় ৩৪ হাজার ৭০০ এর অধিক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন, যাদের মধ্যে অধিকাংশই নারী ও শিশু। ফিলিস্তিনের এমন দুর্দশা দেখে প্রতিটি বিবেকবান মানুষের হৃদয় প্রকম্পিত হয়ে উঠছে। প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে তাদের অনেকেই। তবে এর বিপরীত চিত্রও আছে। এসব হামলাকে সমর্থন ও হামলা বিরোধীদের হেনস্থা করারও একদল মানুষ আছে। যেমন ফিলিস্তিনপন্থী পোস্টে লাইক দেওয়ায় বরখাস্ত হয়েছেন ভারতের মুম্বাইয়ের সোমাইয়া স্কুলের অধ্যক্ষ পারভিন শেখ। তার বিরুদ্ধে ‘হামাসপন্থী, ইসলামপন্থী, এবং হিন্দু-বিরোধী’ মতামতকে সমর্থন করার অভিযোগ আনা হয়েছে। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

এনডিটিভি জানিয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার সোমাইয়া স্কুল কর্তৃপক্ষ সামাজিক প্ল্যাটফর্ম এক্সে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘পারভিন শেখের ব্যক্তিগত সোশ্যাল মিডিয়া কার্যকলাপগুলো আমরা যে মূল্যবোধ ধারণ করি তার পুরোপুরি বিপরীত এবং তাই এ নিয়ে গভীর উদ্বেগের কারণে এবং সতর্কতার সঙ্গে বিষয়টি বিবেচনা করার পর স্কুল কর্তৃপক্ষ তার সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করছে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘সতর্ক বিবেচনার পরে, আমাদের ঐক্য এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক নীতির সঙ্গে আপস না করার বিষয়টি নিশ্চিত করতে ম্যানেজমেন্ট সোমাইয়া বিদ্যাবিহারের সঙ্গে পারভিন শেখের সম্পর্কের ইতি টানছে।’

পারভিন শেখ প্রায় ১২ বছর ধরে সোমাইয়া স্কুলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। সাত বছর আগে তিনি অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব নেন। পারভিন শেখের লিংকডইন প্রোফাইল মতে, শিক্ষা ক্ষেত্রে ৩০ বছরেরও বেশি অভিজ্ঞতা রয়েছে তার।

প্রি-সার্ভিস এবং ইন-সার্ভিস শিক্ষকদের কোচিং, মেন্টরিং এবং পেশাগত উন্নয়নে পারভিন শেখের দক্ষতা রয়েছে। এ ছাড়া তিনি পাঠ্যক্রম প্রণয়ন এবং কার্যকর ক্লাসরুম লে–আউট তৈরিতেও দক্ষ।

শিক্ষকতার পাশাপাশি স্কুল অডিটের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন পারভিন শেখ।


মন্তব্য