হায়দ্রাবাদে ৩ লাখ ৩৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে জয়ী ওয়াইসি

লোকসভা
আসাদউদ্দিন ওয়াইসি ও মাধবীলতা   © ফাইল ছবি

বিশ্বের সবচেয়ে বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ বলা হয় ভারতকে। গত শনিবার ভারতের ১৮তম লোকসভা নির্বাচন শেষ হয়। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলো প্রায় ৯৮ কোটি। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৬৪ কোটি ২ লাখের মতো ভোটার। এর ফলে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে দেশটি। গতকাল মঙ্গলবার (৪ জুন) বহুল আলোচিত ভারতের ১৮তম লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। 

বুথফেরত জরিপ সংস্থাগুলো ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল, এবারও বিপুল বিজয় পাচ্ছে ক্ষমতাসীন বিজেপি ও তার নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএ। কিন্তু প্রাথমিক ফল ঘোষণা শুরু হতেই সমস্ত বুথফেরত জরিপের ভবিষ্যদ্বাণী উল্টে দিয়েছে বিরোধী জোট ইনডিয়া। বিরোধীদের প্রত্যাশার চেয়েও বড় জয়ে সরকার গঠনে চাপের মুখেই পড়তে হতে পারে নরেন্দ্র মোদি ও এনডিএ জোটকে।

তারই ধারাবাহিকতায় এবার কড়া ভাষায় নরেন্দ্র মোদিকে আক্রমণ করলেন এআইএমআইএম প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। হায়দ্রাবাদ লোকসভা কেন্দ্র থেকে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন ওয়াইসি। তারপরই প্রধানমন্ত্রী পদে নরেন্দ্র মোদিকে সমর্থন করতে চান না বলে স্পষ্টভাষায় জানিয়ে দিলেন তিনি।

টানা পঞ্চম মেয়াদে লোকসভায় নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস গড়েছেন অল ইন্ডিয়া মজলিম-ই-ইত্তেহাদ-উল মুসলিমিন’ বা ‘মিম’ দলের প্রধান এবং হায়দ্রাবাদের প্রভাবশালী রাজনীতিক আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপির প্রার্থীকে রেকর্ড ৩ লাখ ৩৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ গণনা অনুযায়ী, ওয়াইসি পেয়েছেন ৬ লাখ ৬১ হাজার ৯৮১ ভোট, আর বিজেপি মাধবী লতা পেয়েছেন ৩ লাখ ২৩ হাজার ৮৯৪ ভোট।

কংগ্রেসের মোহাম্মদ ওয়ালিউল্লাহ সমীর ৬২ হাজার ৯৬২ ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন। ভারত রাষ্ট্র সমিতির (বিআরএস) গদ্দাম শ্রীনিবাস যাদব পেয়েছেন ১৮ হাজার ৬৪১ ভোট।

এআইএমআইএম-এর শক্ত ঘাঁটি হিসেবে বিবেচিত এই আসনে ওয়াইসির জয়ের ব্যবধান সর্বোচ্চ। ১৯৮৪ সালের পর থেকে দলটি এ আসনে কোনো নির্বাচনে হারেনি।

২০০৪ সাল থেকে গত চারটি লোকসভা নির্বাচনে ওয়াইসি এই আসনে জিতেছেন। ২০১৯ সালে তিনি বিজেপির ভগবন্ত রাওকে ২ লাখ ৮২ হাজার ১৮৬ ভোটে পরাজিত করেছিলেন।  

মুসলিম অধ্যুষিত এই কেন্দ্রে ওয়াইসির আধিপত্যকে চ্যালেঞ্জ জানাতে বিজেপির প্রথম নারী প্রার্থী ছিলেন মাধবী লতা। ওয়াইসির বিরুদ্ধে শাস্ত্রীয় নৃত্যশিল্পীকে মাঠে নামিয়েছিল গেরুয়া শিবির। নির্বাচনী প্রচারণায় শহরের একটি মসজিদে কাল্পনিক তীর নিক্ষেপ করে বিতর্কে জড়ান লতা।

হায়দ্রাবাদ ১৯৮৯ সাল থেকে ঐতিহ্যগতভাবে এআইএমআইএম-এর একটি শক্ত ঘাঁটি। সুলতান সালাহউদ্দিন ওয়াইসি প্রথমে ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে এবং এরপরে ১৯৮৯ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত এআইএমআইএম এমপি হিসাবে হায়দ্রাবাদের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন।

হায়দ্রাবাদ লোকসভা কেন্দ্রটি সাতটি বিধানসভা আসন নিয়ে গঠিত এবং এর মধ্যে ছয়টি ওয়াইসির দলের প্রতিনিধিত্ব করে।

এদিকে বিজয়ী হওয়ার পর আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেন, "বিজেপি ভেবেছিল তারা অদৃশ্য, কিন্তু কেউ অজেয় নয়। প্রধানমন্ত্রী মোদি কি লাঠির সাহায্য ছাড়া সরকার গড়তে পারবে?‌'‌

নিজ কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থীকে বিপুল ভোটে হারাবার পর ওয়াইসি সাংবাদিকদের বলেন, "আমি মানুষকে ধন্যবাদ জানাতে চাই আমাদের দলকে ঐতিহাসিক জয় দেওয়ার জন্য। পঞ্চমবার মানুষ আমাদের সফল করেছে। হায়দরাবাদের সকল মানুষকে ধন্যবাদ জানাই।"

লোকসভায় বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি, পেয়েছে ২৪০টি আসন। অথচ ২০১৯ সালের নির্বাচনে বিজেপির মোট আসন সংখ্যা ছিল ৩০৩। কিন্তু পুরো ভারতের ভোটের হার হিসাব করা হলে বিজেপি ২০১৯ সালের তুলনায় এবার মাত্র ০.৭ শতাংশ কম ভোট পেলেও হারিয়েছে ৬৩ আসন।

সরকার গঠনে লোকসভার ২৭২ আসনের জন্য শরিকদের ওপর বিশেষভাবে নির্ভরশীল হতে হচ্ছে নরেন্দ্র মোদিকে। বিজেপি নিজে থেকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে ব্যর্থ হওয়ায় তেলেগু দেশম পার্টির (টিডিপি) প্রধান চন্দ্রবাবু নাইডুকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জোট গঠনের আলোচনা করতে ফোন দিয়েছেন।


মন্তব্য