অজগরের পেটে মিললো নিখোঁজ নারীর সন্ধান

ইন্দোনেশিয়া
  © সংগৃৃহীত

নিখোঁজের তিন দিন পর বিশাল আকৃতির অজগরের পেট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে এক নারীর মৃতদেহ। এই ঘটনায় বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসি প্রদেশে এ ঘটনা ঘটে। শনিবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, এই নির্মম ঘটনাটি ঘটেছে ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসি প্রদেশের দক্ষিণাঞ্চলের এলাকা কালেমপাং গ্রামে। নিহত নারীর নাম ফরিদা (৪৫)। ওই গ্রামে তিনি চার সন্তানসহ তার স্বামীর সঙ্গে বাস করতেন।  গত শনিবার ফরিদার স্বামী তাকে প্রায় ১৬ ফিট লম্বা একটি অজগরের পেট থেকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে স্থানীয় নেতা সুয়ারদি রোসি জানিয়েছেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে ফরিদা বাড়ির বাইরে যান। এর পর থেকেই তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে গ্রামবাসীরা বিষয়টি জানতে পারলে বেশ কিছুক্ষণ খোঁজাখুজি করেন। তবে সে রাতে তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরের দিন সকালে বসতভিটা থেকে কিছুটা দূরে ফরিদার স্বামী তার গৃহস্থালি জিনিস পত্র পড়ে থাকতে দেখে গ্রামবাসীকে খবর দেন।

পরে গ্রামবাসীরা একত্রিত হয়ে ওই স্থানে খোঁজ করে একটি বিশাল আকৃতির অজগর সাপ আবিষ্কার করেন। এরপর স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগীতায় তারা ওই অজগরটির পেট কেটে ফরিদার মৃতদেহ উদ্ধার করেন। এসময় ফরিদার শরীরে তার পরনের জামা-কাপড়ও ছিল।

ইন্দোনেশিয়াতে এই ধরনের ঘটনা অত্যন্ত বিরল হলেও সাম্প্রতিক বছরগুলিতে দেশটিতে অজগরের গিলে ফেলার ঘটনায় বেশ করেকজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত বছর সুলাওয়াসি প্রদেশের তিনাঙ্গেনায় একটি আট মিটার লম্বা অজগরের পেট থেকে একজন কৃষকের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। এছাড়া ২০১৮ সালে একই প্রদেশের দক্ষিণাঞ্চলে এমন একটি ঘটনা ঘটেছিল। সেসময় প্রদেশটির মুনা শহরের এক ৫৪ বছরের মহিলাকে পুরো গিলে খেয়েছিল বিশাল আকৃতির একটি অজগর। 


মন্তব্য