ভক্তদের মল খাইয়ে হাতিয়েছেন ৪৪ কোটি টাকা! কে এই নারী?

ভারতে
  © ফাইল ছবি

নিজেকে স্বয়ং দেবতা পরিচয় দিতেন। এই বলে ২০১২ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে অনুগামীদের কাছ থেকে হাতিয়েছেন প্রায় ৪৪ কোটি টাকা। শুধু তাই নয়, কথা অমান্য করলে দিতেন কঠোর শাস্তি। যেমন- কাঁচি দিয়ে ছুরিকাঘাত করা, প্লায়ার দিয়ে দাঁত বের করা, মানুষের মল খেতে বাধ্য করা এবং একটি বিল্ডিংয়ের দ্বিতীয় তলা থেকে লাফ দিতে বাধ্য করা। 

কে এই মহিলা?
'গডওম্যান' নামে পরিচিত এই মহিলা। ৫৪ বছরের এই মহিলার নাম উ মে হো। যিনি সিঙ্গাপুরের বাসিন্দা। তিনি তাঁর অনুরাগীদের মগজ ধোলাই করেছিলেন যে, তিনি স্বয়ং একজন দেবতা। এবং তিনি দেবতার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে পারেন। শুধু তাই নয়, অনুগামীদের অবাধ্যতার জন্য নিষ্ঠুর শাস্তি দিতে পারেন, এই কথাও রটিয়েছিলেন।

এক সর্বভারতীয় সংবাদসংস্থার প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, ওই মহিলাকে প্রতারণা এবং মানুষের বিশ্বাসকে আঘাত করা সহ আরও ৫ অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। গত সপ্তাহে তাকে সাড়ে ১০ বছরের জন্য কারাগারে পাঠানো হয়।

জানা গিয়েছে, উ মে হো ভারতীয় আধ্যাত্মিক নেতা শ্রী শক্তি নারায়ণী আম্মায় বিশ্বাসী। যিনি ভারতে প্রায় ৩০ জন অনুসারীর একটি দলের নেতৃত্ব দেন। আরও জানা গিয়েছে, ওই মহিলা তাঁর অনুগামীদের মল খেতে বাধ্য করেন এবং তাদের দাঁত বের করে দেন। 

তিনি ২০১২ সাল থেকে প্রায় আট বছর ধরে এই গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। তার তথাকথিত আধ্যাত্মিক সেশনের সময় তাদের বোঝান যে তিনি দেবতা এবং আত্মার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন এবং তাদেরকে তাকে 'প্রভু' বলে ডাকতে বলেছিলেন। এমনকী তার অনুসারীরা নিজেদের জন্য বা তাদের আত্মীয়দের সুস্থ করার জন্য তার কাছে যেতেন। সেই সুযোগ ফায়দা নিয়ে উ তাদের বলতেন বাজে কর্ম পরিষ্কার করতে বলতেন। ভালো কর্মের জন্য ভারতের আম্মার কাছে টাকা পাঠাতে বলতেন।

এমনকি ওই মহিলা তার ভক্তদের কত পরিমাণ সম্পত্তি আছে, তা বলার জন্য বাধ্য করতেন। তারপরে তাদের মিথ্যা কথা বললে দেবতাদের দ্বারা তাদের শাস্তি দেওয়া হবে বলে সতর্ক করে তাদের টাকা পাঠানোর জন্য রাজি করাতেন। উ দাবি করেছেন যে, তিনি ওই অনুদান সংগ্রহ করে, গরু কেনা এবং মন্দির ও স্কুল নির্মাণের মতো প্রকল্পের জন্য ভারতে পাঠাবেন। তিনি তার অনুসারীদের উপাসনা হিসাবে সম্পত্তি এবং যানবাহন ক্রয় করার নির্দেশ দিয়েছেন, যা তিনি তার নিজের সুবিধার জন্য ব্যবহার করেছিলেন। ২০১২ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে ওই মহিলা প্রায় ৪৪ কোটি টাকা হাতিয়েছেন।

উ তার অনুগামীদের মধ্যে ১০ জনকে তার সঙ্গে রেখেছিলেন। যাতে তারা সারা সবসময়ের জন্য সেবা করতে পারে। শুধু তাই নয়, সে তাদেরকে ভারতে পাঠিয়েছিলেন গরু কেনা এবং মন্দির-স্কুল নির্মাণের মত কাজের জন্য। উ তার ভক্তদের রীতিমত বাধ্য করেছিলেন তার জন্য মুদির জিনিস কেনা, রান্না করা, ঘর পরিষ্কার করা, তাকে নিয়ে যাতায়াত করার জন্য। কিছু কিছু ভক্তরা তো তার কথা তাদের চাকরি ছাড়তেও বাধ্য হয়েছিলেন। তাদেরকে সে নির্দেশ দিয়েছিল যে চাকরি ছেড়ে তার কাজে যোগদান করতে হবে। কথার অমান্য করলে সহিংস এবং অবমাননাকর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। যার মধ্যে রয়েছে,  বেত বা পেইন্ট ব্রাশ দিয়ে আঘাত করা, কাঁচি দিয়ে ছুরিকাঘাত করা, প্লায়ার দিয়ে দাঁত বের করা, মানুষের মল খেতে বাধ্য করা এবং একটি বিল্ডিংয়ের দ্বিতীয় তলা থেকে লাফ দিতে বাধ্য করা।

এক অনুগামী তার দৃষ্টিশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত করে যখন উ তার চোখে আঘাত করে যখন তাকে বেত দিয়ে আঘাত করে। যদি কোনও অনুগামী দল ছেড়ে যাওয়ার চেষ্টা করে, উ তাদের অসংখ্য কল এবং হুমকি দিয়ে হয়রানি করত। যার ফলে তারা ভয়ে ফিরে আসে এবং কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হয়।

যে শিকারের দৃষ্টিশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল সে একজন ৪৩ বছর বয়সী সিঙ্গাপুরের মহিলা। যখন তিনি উ-কে ব্যথার কথা বলেন। পরে উ তার চোখ ধোয়ার জন্য এবং তরল পান করার জন্য কিছু 'পবিত্র জল' দিয়েছিল এবং তাকে সরাসরি সূর্যের দিকে তাকাতে নির্দেশ দেয়। যা ফলস্বরূপ, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ওই মহিলা তাঁর দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলে। উ তাকে চিকিৎসার খোঁজ নিতে নিষেধ করেছিলেন, এবং অবশেষে যখন তিনি করেছিলেন, তখন তিনি ডাক্তারের কাছে মিথ্যা বলেছিলেন, দাবি করেছিলেন যে কোনও আঘাতের কারণে এই ঘটনা ঘটে।

২০২০-এর মাঝামাঝি, কয়েকজন অনুগামী-ই উ-এর বিরুদ্ধে পুলিসে রিপোর্ট দায়ের করে। তার কর্মের কারণে ব্যাপক শারীরিক নির্যাতন, জীবন সঞ্চয় হারানো এবং অনিয়ন্ত্রিত ব্যাঙ্ক ঋণের অভিযোগ করে। অবশেষে ২০২০-র অক্টোবরে উ-কে গ্রেফতার করা হয়।


মন্তব্য