বাংলাদেশ থেকে ১৩০০ বাইক ও ট্যাক্সিচালক নেবে দুবাই

দুবাই
  © ফাইল ছবি

মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম ধনী ও প্রভাবশালী দেশ দুবাই। গত কয়েক দশকে বিদেশিদের আকৃষ্ট করতে ব্যাপক উন্নয়ন করেছে দেশটি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বড় বড় ব্যবসায়ী এবং পর্যটকদের অন্যতম গন্তব্যস্থল হয়ে উঠেছে দেশটি।

মোটরযানচালক পেশায় সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) যাওয়ার সুযোগ এসেছে। বাংলাদেশ থেকে ‘বাইক’ ও ‘ট্যাক্সি’ চালক নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে দুবাই। চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে ১ হাজার মোটরসাইকেলচালক ও ৩০০ ট্যাক্সিচালক নেবে দেশটি। এ ছাড়া আগামী বছর থেকে ২ হাজার করে ট্যাক্সি ও মোটরসাইকেলচালক নেবে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে দুবাই ট্যাক্সি করপোরেশনের পরিচালক নাসের মোহাম্মদ মুদাইফাসের সঙ্গে বৈঠকের পর এ তথ্য জানান প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে ১ হাজার মোটরসাইকেলচালক ও ৩০০ ট্যাক্সিচালক নেবে দেশটি। তারা মোট পাঁচ মাসে লোক নেবে। এ ছাড়া প্রতি বছর ২ হাজার করে মোটরসাইকেল ও ট্যাক্সিচালক যাবে। পরবর্তিতে সংখ্যাটা আরও বাড়বে।

আমিরাতের রাষ্ট্রদূত আব্দুল্লাহ আলি আল হামুদি জানান, দুবাইয়ে ট্যাক্সি ও মোটরসাইকেলচালকের চাহিদা রয়েছে। এই দুই সেক্টরে বাংলাদেশ থেকে প্রতিদিনই লোক নেওয়া হচ্ছে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, চলতি বছর ১৩০০ ট্যাক্সিচালক ও মোটরসাইকেলচালক নিয়োগ দেওয়া হবে। পরবর্তী বছরগুলোতে এই সংখ্যাটি বাড়িয়ে ২ হাজার করার পরিকল্পনা রয়েছে। এই শ্রমিকরা সংযুক্ত আরব আমিরাতের শ্রম আইন অনুযায়ী বেতন পাবেন।

তিনি বলেন, গত বছর দুবাই ট্যাক্সি কোম্পানি বাংলাদেশ থেকে ২ হাজার ১০০ কর্মীর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে। আমরা অন্য সেক্টরে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিচ্ছি, নিরাপত্তা কর্মী, আতিথেয়তার জন্য কর্মী নিচ্ছি।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন, দুবাই ট্যাক্সি করপোরেশনের পরিচালক নাসের মোহাম্মদ মুদাপ্ফা, প্রিভিলেজ লেবার রিক্রুটমেন্টের পরিচালক খালিদ আল মোহাম্মদ বিন সালমিন আল সুয়াদি, পরিচালক, দুবাই ট্যাক্সি করপোরেশনের রিক্রুটিং ম্যানেজার সাইদ আমিন আব্দুল রহমান মোহাম্মদ আবু বকর ও প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. রুহুল আমিনসহ প্রমুখ।


মন্তব্য