বরাদ্দের চেয়ে কম খরচে শেষ হলো পদ্মা সেতু প্রকল্প

 পদ্মা সেতু
  © ফাইল ছবি

উত্তাল পদ্মার বুকে বাংলাদেশের গৌরবের প্রতীক পদ্মা সেতু- একটি স্বপ্নের সেতু। ইতিহাসের একটি বড় চ্যালেঞ্জিং নির্মাণ প্রকল্প। সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে আজ রোববার (৩০ জুন) শেষ হচ্ছে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প। বরাদ্দকৃত ৩২ হাজার ৬০৭ কোটি টাকা থেকে চূড়ান্ত বিলে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা কম খরচ হয়েছে।

রোববার (৩০ জুন) বাঙালির সক্ষমতার স্মরক পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের সমাপনী। সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আগামী ৫ জুলাই মাওয়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১৩ হাজার ৬৫৯ কোটির সবশেষ বরাদ্দের বিপরীতে মূল সেতুতে খরচ হয়েছে ১৩ হাজার ১৩৩ কোটি, সাশ্রয় ৫২৬ কোটি। অ্যাপ্রোচ রোডে সাশ্রয় ১৮৫ কোটি। তবে নদীশাসনে বেশি লেগেছে প্রায় ১৭১ কোটি ২৭ লাখ টাকা।

২৩ বছর আগে ২০০১ সালের ৪ জুলাই মাওয়ায় ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সরকারে ফিরে ২০০৯ সাল থেকে আবার পুরো দমে কাজ শুরু করে আওয়ামী লীগ সরকার। ২০১০ সালের ১১ এপ্রিল দরপত্র আহ্বান করা হয়। পরের বছর ২০১১ সালের ২৮ এপ্রিল পদ্মার বুকে চলন্ত ফেরিতে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ১২০ কোটি ডলারের ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হয়। পরবর্তীতে জাইকা, আইডিবি ও এডিবির সঙ্গে ঋণচুক্তি হয়।

 কিন্তু অর্থায়ন থেকে সরে দাঁড়ায় বিশ্বব্যাংক। তোলা হয় দুর্নীতির অভিযোগ। বিশ্বব্যাংককে অনূসরণ করে এডিবি ও জাইকা সরে যায়। অনেক নাটকীয়তা, অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ ও টানটান উত্তেজনার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব বাধাকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিয়ে নিজেদের টাকায় পদ্মাসেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন। এরপর থেকে নতুন করে আবারও কর্মযজ্ঞ শুরু হয়।

এই স্বপ্নের সেতু নির্মাণের পেছনে ছিলেন বাংলাদেশ, চীন ও ইউরোপের প্রায় ১ হাজার ২০০ প্রকৌশলী এবং ২০ হাজার শ্রমিক। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আনা হয় প্রয়োজনীয় সব যন্ত্রাংশ। জার্মানি থেকে হ্যামার, লুক্সেমবার্গ থেকে রেলের স্ট্রিংগার, চীন থেকে ট্রাস ও স্প্যান, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, হল্যান্ডসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নামকরা প্রকৌশলীদের পরামর্শক হিসাবেও সহযোগিতা নেয়া হয়। দেশ-বিদেশের প্রযুক্তি, মেধা ও শ্রম কাজে লাগিয়ে ২০২২ সালের ২৫ জুন পদ্মা সেতু চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। এখন প্রকল্পের সফল সমাপ্তির পর ৫ জুলাই মাওয়ায় সুধী সমাবেশ আসছেন প্রধানমন্ত্রী।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ রজব আলী বলেন, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের সফল সমাপ্তির পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাঠে এসে সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রকল্পের সমাপ্তি ঘোষণা করবেন।


মন্তব্য