৪৮ ঘণ্টায় ৩৫ শিশু নিখোঁজের খবরটি গুজব; পোস্টদাতাকে সনাক্ত করেছে পুলিশ!

নিখোঁজ
  © ফাইল ছবি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয় পড়া দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩৫টি শিশু নিখোঁজের ঘটনাটি গুজব বলছে পুলিশ। ইতোমধ্যেই পোস্টদাতাকে শনাক্ত করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। তিনি পোস্টটি সরিয়েও নিয়েছেন। কেন তিনি এই পোস্ট দিয়েছিলেন, তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

গতকাল সোমবার (৬ জুলাই) সকাল থেকে হঠাৎ শিশু নিখোঁজের তথ্য নিয়ে ফেসবুকে শত শত পোস্ট আসতে শুরু করে। যেখানে বলা হয়, গত ৪৮ ঘণ্টায় ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে নিখোঁজ হয়েছে ৩৫ শিশু। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় পোস্টগুলো। ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ, পেজ ও ব্যক্তিগত আইডি থেকে আসতে শুরু করে একের পর এক নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তি।

সতর্কতামূলক ও ব্রেকিং নিউজ লিখে এসব নিখোঁজ সংবাদ ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে প্রচার করা হয়েছে। বিভিন্নজন পোস্টে লিখেছেন, ‘ব্রেকিং নিউজ! গত ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ঢাকাসহ চট্টগ্রামে ৩৫টি বাচ্চা নিখোঁজ। সতর্ক থাকুন।’

তবে পুলিশ জানিয়েছে, পুরো ঘটনাটিই গুজব। এমন তথ্যের কোনো ভিত্তি নেই বলে জানিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। শিশু নিখোঁজের বিষয়ে সম্ভাব্য প্রথম ভাইরাল পোস্ট দাতাকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। পোস্ট দাতার নাম সাফিউল্লাহ সাফা। তিনি পোস্টটি সরিয়ে নিয়েছেন। তাঁর সঙ্গে চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা যায়নি। তবে পুলিশের নজরদারিতে আছেন তিনি। 

এ বিষয়ে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) ড. খ. মহিদ উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের কাছে বিষয়টি গুজব মনে হয়েছে। আমরা এ বিষয়ে খোঁজ নিয়েছি, এমন নিখোঁজের কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই।’ 

তিনি বলেন, ‘কোনো মহল হয়তো এই তথ্য ছড়িয়ে আতঙ্ক তৈরি করতে চাচ্ছে। এটি কীভাবে শুরু হলো, আমরা তা খতিয়ে দেখছি।’ 

পুলিশ জানিয়েছে, ফেসবুকে ৬ ও ৭ জুলাই এমন পোস্ট যাঁরা দিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করে দেখা যায়, কোনো কোনো নিখোঁজ শিশুর বিষয়ে না জেনেই পোস্ট দিচ্ছেন কেউ। কোনোটির আবার নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া ফোন নম্বর বন্ধ। কাউকে কাউকে আবার খুঁজে পাওয়া গেছে। 

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, গত ৪ থেকে ৬ মে ঢাকায় ৫০ থানায় নিখোঁজের জিডি হয় ৩৩টি, ৪ থেকে ৬ জুন ৩৬টি এবং ৪ থেকে ৬ জুলাইয়ে ৩২টি নিখোঁজের ডায়েরি হয়েছে। এসব ডায়েরিতে বয়স্ক, প্রতিবন্ধী, মানসিকভাবে অসুস্থ, গৃহপরিচারিকা ও নারী–শিশু রয়েছেন। তবে একযোগে এত শিশু নিখোঁজের কোনো তথ্য নেই।


মন্তব্য