জুনে সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন ৮০১ জন

সড়ক দুর্ঘটনা
  © ফাইল ছবি

সড়ক দুর্ঘটনা দেশে এখন মহামারি আকার ধারণ করেছে। গত জুনে সারাদেশে ৫৫৭ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৮০১ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়াও ৩ হাজার ২৬৭ জনের আহত হওয়ার তথ্য জানিয়েছে যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এই সময় রেলপথে ৪৬ দুর্ঘটনায় ৪২ জন নিহত, ৯ জন আহত হয়েছেন। নৌ পথে ৯ টি দুর্ঘটনায় ১২ জন নিহত, ৭ জন আহত এবং ৯ জন নিখোঁজ রয়েছেন।

আজ বুধবার (১০ জুলাই) সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই প্রতিবেদন তুলে ধরে সংগঠনটি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জুনে দেশের গণমাধ্যম ও পঙ্গু হাসপাতালের তথ্যমতে সড়ক, রেল ও নৌ-পথে সর্বমোট ৬১২ টি দুর্ঘটনায় ৮৫৫ জন নিহত এবং ৩ হাজার ২৮৩ জন আহত হয়েছেন। এই সময়ে ২১৭ টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ২২২ জন নিহত, ১ হাজার ৯৩ জন আহত হয়েছেন। যা মোট দুর্ঘটনার ৩৮ দশমিক ৯৫ শতাংশ, নিহতের ৩৮ দশমিক ১ শতাংশ ও আহতের ৩৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

এই মাসে সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনা সংগঠিত হয়েছে ঢাকা বিভাগে ১৩৩ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৩৯ জন নিহত ও ২১৪ জন আহত হয়েছেন, সবচেয়ে কম সড়ক দুর্ঘটনা সংগঠিত হয়েছে সিলেট বিভাগে ২৯ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৩ জন নিহত ও ৪৭ জন আহত হয়েছেন। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির সড়ক দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের সদস্যরা বহুল প্রচারিত ও বিশ্বাসযোগ্য জাতীয়, আঞ্চলিক ও অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত সড়ক, রেল ও নৌ পথের দুর্ঘটনার সংবাদ মনিটরিং এর পাশাপাশি জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে (পঙ্গু হাসপাতাল) সড়ক দুঘটনায় আহত ২ হাজার ১৩৯ জন আহত রোগীর তথ্য নিয়ে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, জুনে সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যমতে ৫৫৭ টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৮৪ জন নিহত ১ হাজার ১২৮ জন আহত হয়েছেন। অপরদিকে, ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালের তথ্য অনুযায়ী এইমাসে ২ হাজার ১৩৯ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত রোগী ভর্তি হয়েছেন। যার মধ্যে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়ে হাত বা পা ভেঙে ভর্তি রোগী ৯২২ জন। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব বলছে, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত রোগীর ১৫ শতাংশ হাসপাতালে অথবা বাসায় চিকিৎসারত অবস্থায় মারা যায়। সেই হিসেবে বিদায়ী জনু মাসে ৮০১ জন নিহত ও ৩ হাজার ২৬৭ জন আহত হয়েছে। দেশে প্রায় ৯ হাজার সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে। এসব হাসপাতালে জুন মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহত হয়ে কতজন রোগী ভর্তি হয়েছে তা জানানোর জন্য বিআরটিএর কাছে দাবি জানান যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

এই সময় সড়ক দুর্ঘটনায় ২৭ দশমিক ২৬ শতাংশ মোটরসাইকেল, ২২ দশমিক ৭৯ শতাংশ ট্রাক-পিকাপ-কাভার্ডভ্যান ও লরি, ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ বাস, ১৫ দশমিক ২৭ শতাংশ ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ইজিবাইক, ৫ দশমিক ৮৭ শতাংশ সিএনজিচালিত অটোরিকশা সড়কে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে।


মন্তব্য