পিএসসির কোনো চেয়ারম্যানেরই গাড়িচালক ছিলেন না আবেদ আলী: পিএসসি

আবেদ আলী
  © ফাইল ছবি

গত ১২ বছরে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অধীনে অনুষ্ঠিত বিসিএসসহ ৩০টি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসে জড়িত থাকায় এখন টক অব দ্য কান্ট্রি হলো সংস্থাটির সাবেক গাড়িচালক গ্রেপ্তার আবেদ আলী। তবে তিনি চাকরি জীবনের কখনো পিএসসির কোন চেয়ারম্যানের গাড়ি চালাননি বলে জানিয়েছে পিএসসি।

আজ বুধবার (১০ জুলাই) পিএসসির প্রশাসন শাখা থেকে তথ্যটি জানানো হয়েছে।

পিএসসি জানিয়েছে, চাকরিজীবনে আবেদ আলী তিনজন সদস্য এবং একজন যুগ্মসচিবের গাড়ির চালক ছিলেন। পিএসসির সদস্য মজিবুর রহমান বিশ্বাস, মোজাম্মেল হক ও মোহাম্মদ হোসেন সেরনিয়াবাতের গাড়ি চালিয়েছেন আবেদ আলী। তবে কোন যুগ্মসচিবের গাড়ি চালিয়েছেন তিনি তা নিশ্চিত করেনি পিএসসি।

সংস্থাটি জানায়, ১৯৯৮-২০০২ সাল পর্যন্ত পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন অধ্যাপক ড. মো. মুস্তফা চৌধুরী। সেসময় তার গাড়িচালক ছিলেন আলমগীর হোসেন। কণ্ঠশিল্পি তাহসান রহমান খানের মা অধ্যাপক ড. জিনাতুন নেসা তাহমিদা বেগম ২০০২-২০০৭ সাল পর্যন্ত সংস্থাটির চেয়ারম্যান ছিলেন। ওই সময়ও গাড়িচালক ছিলেন আলমগীর হোসেন। ২০০৭ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন ড. সাদত হুসাইন, তার সময়েও আলমগীর হোসেনই গাড়িচালক ছিলেন।

এরপর পিএসসির চেয়ারম্যান ইকরাম আহমেদের গাড়িচালক ছিলেন আবু বক্কর সিদ্দিক। ইকরাম আহমেদের পর পিএসসির চেয়ারম্যান ছিলেন ড. মোহাম্মদ সাদিক। তার সময় গাড়িচালক ছিলেন আবু বক্কর সিদ্দিক, শহিদ, অনুত্তর চাকমা। আর পিএসসির বর্তমান চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসাইনের গাড়িচালক হিসেবে বর্তমানে কর্মরত রয়েছেন অনুত্তর চাকমা।

এর আগে পিএসসির সাবেক চেয়ারম্যান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ড. মোহাম্মদ সাদিক বলেছেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত থাকার ঘটনায় গ্রেপ্তার সৈয়দ আবেদ আলীর সঙ্গে তার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। তার সময় আবেদ আলী গাড়িচালক ছিলেন না।

এদিকে পিএসসির প্রশ্নফাঁসে দায় স্বীকার করেছেন সৈয়দ আবেদ আলী জীবনসহ সাত আসামি। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।


মন্তব্য