এবার বইমেলা থেকে বিতাড়িত হয়ে ডিবি কার্যালয়ে মুশতাক-তিশা দম্পতি

বইমেলা
  © সংগৃহীত

মুশতাক-তিশা দম্পতি বর্তমান সময়ে বহুল আলোচিত-সমালোচিত । বইমেলার নবম দিনে ‘তিশার ভালোবাসা’ বইয়ের লেখক মুশতাক আহমেদকে ও তার স্ত্রী তিশাকে ‘ভুয়া ভুয়া’ ‘ছি ছি ছি ছি’ দুয়োধ্বনি দিয়ে বইমেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে যেতে বাধ্য করেন মেলায় আসা শতাধিক দর্শনার্থী। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তাদেরকে নিরাপত্তা বেষ্টনী দিয়ে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের গেট দিয়ে মেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে যেতে সাহায্য করেন।

এদিকে সোমবার বিকেলে ৩টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট গেট দিয়ে ফের বইমেলায় প্রবেশ করেন এই দম্পতি। সেখানে গিয়ে কিছুক্ষন অবস্থান করার পরেই একদল মানুষ ‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগান দিতে শুরু করেন। এরপর নিরাপত্তাকর্মীদের সহায়তা নিয়ে মেলা থেকে বের হয়ে আসেন খন্দকার মুশতাক ও তিশা।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও চলছে ব্যাপক আলোচনা। একদল মনে করছেন, মুশতাক-তিশার সঙ্গে যা ঘটেছে, এটা তারা প্রাপ্য ছিলেন। আবার একদলের মত, এমন এক ঘটনা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য না।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাতে শাহবাগ থানায় গিয়ে নিরাপত্তা চেয়ে জিডিটি করেন তারা। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই এবার ডিবি কার্যালয়ে হাজির হলেন মুশতাক-তিশা দম্পতি। সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে তারা ডিবি কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। প্রতিবেদনটি লিখা আগ পর্যন্ত তারা ডিবি কার্যালয়েই অবস্থান করেন।

অন্যদিকে সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) গভীর রাতে এক ভিডিও বার্তায় বাঁচার আকুতি জানিয়েছেন অসম বিয়ের ঘটনায় আলোচিত মুশতাক-তিশা দম্পতি। এক ভিডিও বার্তায় তারা এই আকুতি জানান। যেখানে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহযোগিতা চেয়েছেন।

ভিডিও বার্তায় মুশতাক-তিশা দম্পতি বলেন, এই দেশে কি আমাদের বাঁচার অধিকার নেই? আজ এক লোক প্রকাশ্যে গণমাধ্যমে এসে আমাদের দুজনকে গুলি করে হত্যার হুমকি দিয়েছে। আমরা শঙ্কিত। আমরা বাঁচতে চাই। নিরাপত্তা চাই। বইমেলায় যেতে চাই। আর এই হুমকি দেওয়া ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার দেখতে চাই।

মুশতাক আরও বলেন, শনিবার রাতে শাহবাগ থানায় নিরাপত্তা চেয়ে আমরা জিডি করেছি। এরই মধ্যে নতুন করে একটি ভিডিও আমাদের নজরে আসে যেখানে আমাকে ও আমার স্ত্রী সিনথিয়া ইসলাম তিশাকে গুলি করে হত্যার হুমকি দিয়েছে। আমি তার বিচার চাই। সেই সঙ্গে জীবনের নিরাপত্তা চাই। আমরা শরীয়া মোতাবেক বিয়ে করেছি।কোন অন্যায় করিনি।

একই বিষয়ে সিনথিয়া ইসলাম তিশা বলেন, আমি একজন নারী, একজন মানুষ। আমার কী অপরাধ? আমার বাঁচার অধিকার নেই? প্রকাশ্যে এভাবে কেন হুমকি দেবে। আমরা শরীয়া মোতাবেক বিয়ে করেছি।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগে রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য খন্দকার মুশতাক আহমেদ একই কলেজের শিক্ষার্থী সিনথিয়া ইসলাম তিশাকে বিয়ে করে আলোচনায় আসেন। এসময় তারা ভালোবেসে একে অপরকে বিয়ে করেছেন বলে জানান। তাদের বিয়ের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

 


মন্তব্য