ফুলের স্পর্শও আপনার হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে

ফুল
  © ফাইল ছবি

ফুল হলো সৌন্দর্যের প্রতীক, ভালোবাসার প্রতীক। তবে এমন এক ফুল আছে যা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে! অবিশ্বাস্য শোনালেও বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলছেন, ফক্সগ্লোভ ফুলটি মানুষের হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, নলাকার আকৃতির ফুল ফক্সগ্লোভ ভেষজ চিকিৎসার সমৃদ্ধ ইতিহাসের জন্য বিখ্যাত। ইউরোপ এবং এশিয়ার স্থানীয় ফুলটি তার সৌন্দর্যের জন্য স্থান পেয়েছে বাড়ির বাগানেও। গোলাপী, বেগুনি এবং সাদাসহ বিভিন্ন রঙের ফুলগুলো যে কোনও বাগানে মুগ্ধতার ছোঁয়া যোগ করে।

তবে বিশেষজ্ঞ ডা. জেন ওয়াং বলেছেন, সৌন্দর্য ছাড়াও ফক্সগ্লোভের অন্য আরেকটি দিক রয়েছে। এতে ডিগক্সিন নামের একটি শক্তিশালী যৌগ রয়েছে যা এক ধরনের কার্ডিয়াক গ্লাইকোসাইড। যা হৃৎপিণ্ডের ওপর বেশ ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। গ্লাইকোসাইডের উপস্থিতির মানে হল, এই যৌগগুলোতে চিনির অণু রয়েছে।

একটি সুস্থ হৃদয় হাজার হাজার কার্ডিয়াক কোষের মাধ্যমে সারা শরীরে রক্ত পাম্প করে থাকে। এই কোষগুলোর ঝিল্লিতে বিভিন্ন আয়ন চ্যানেল এবং পরিবহনকারী রয়েছে যা সোডিয়াম, পটাসিয়াম এবং ক্লোরাইডের মতো চার্জযুক্ত কণাকে চলাচলের অনুমতি দেয়। এই আয়নগুলোর নড়াচড়া বৈদ্যুতিক প্রবাহ উৎপন্ন করে এবং সোডিয়াম-পটাসিয়াম বৈদ্যুতিক ভারসাম্য বজায় রাখে।

জেন ওয়াং বলেছেন, সমস্ত ফক্সগ্লোভ প্রজাতি এই কার্ডিয়াক গ্লাইকোসাইডগুলো উৎপাদন করে এবং কার্ডিয়াক গ্লাইকোসাইডগুলো কোষের ঝিল্লিকে সোডিয়াম পাম্প করা থেকে বাধা দেয়। এটি কোষে থাকা সোডিয়ামের পরিমাণ বাড়ায় এবং কোষগুলোতে আরও ক্যালসিয়াম তৈরি করতে দেয়। এতে আয়নগুলোও সঠিকভাবে কাজ করতে পারে না এবং কার্ডিয়াক কোষগুলোর মধ্যে একটি রাসায়নিক ক্যাসকেড সৃষ্টি করে যা হৃৎপিণ্ডকে হঠাৎ হঠাৎ অনেক দ্রুত পাম্প করে। এতে হার্টের স্বাভাবিক ছন্দে ব্যাঘাত ঘটে। এটি ভেন্ট্রিকুলার ফাইব্রিলেশন নামে পরিচিত একটি বিপজ্জনক ধরনের অ্যারিথমিয়া যার ফলে কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট এবং মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

ওয়াং বলেন, ডিগক্সিন আবার হার্টের ব্যর্থতার ওষুধের জন্যও পরিচিত। তিনি পরামর্শ দিয়েছেন, কেউ যদি দুর্ঘটনাক্রমে গাছের কোনও অংশ খেয়ে ফেলে তবে তাদের অবিলম্বে হাসপাতালে যেতে হবে।


মন্তব্য