বাংলাদেশ ও ভারতকে সাফের যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা

ফুটবল
  © সংগৃহীত

অবশেষে বাংলাদেশ ও ভারতকে যৌথভাবে সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছে। এর আগে নির্ধারিত সময় ও ২২ শটের টাইব্রেকারে ম্যাচে সমতা থাকায় টসে নির্ধারণ করা হয় বিজয়ী দল। যেখানে টস ভাগ্যে বাংলাদেশকে হারিয়ে শিরোপা জিতে ভারত। কিন্তু বাংলাদেশের আপত্তির মুখে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন ম্যাচ কমিশনার শ্রীলঙ্কান ডি সিলভা ডিলান। ম্যাচ রেফারি পুনরায় টাইব্রেকারের নেয়ার সিদ্ধান্ত জানান। কিন্তু এবার বেঁকে বসে ভারত। 

এরপর দুই ঘন্টা অপেক্ষা ছিল ফলাফল ঘোষণার জন্য। রাত সাড়ে দশটার পর পুরস্কার প্রদান মঞ্চে সাফ সেই জটিলতার নিরসন করে। বাংলাদেশ ও ভারত উভয় পক্ষকে সন্তুষ্ট করে যুগ্ম শিরোপা ঘোষণা করে সাফ।

টস অনুযায়ী ভারত চ্যাম্পিয়ন। বাইলজ অনুযায়ী টস হয় না, সাডেন ডেথে খেলা চলবে। ম্যাচ কমিশনার ভুল স্বীকার করে ভারতকে খেলায় ডাকে। তারা খেলায় আর আসেনি। এই নিয়মানুযায়ী বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার কথা৷ কিন্তু টসে ভারত জেতায় এবং সিদ্ধান্ত হওয়ায় ম্যাচ কমিশনার ও সাফ মিলে মাঝামাঝি সিদ্ধান্ত নেয়।

বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) কমলাপুর স্টেডিয়ামে সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনালে ভারত ১-০ গোলে এগিয়ে। ৯০ মিনিটের খেলা শেষ। ভারতের শিরোপা উদযাপনের অপেক্ষা। সেই মুহূর্তে সাগরিকা গোল করে বাংলাদেশকে ম্যাচ ফেরান।

রেফারি চার মিনিট ইনজুরি সময় দেন। ৩ মিনিটে আফিদা খন্দকারের থ্রো ইন থেকে বাংলাদেশের সাগরিকা বক্সের আগে জটলায় বলের নিয়ন্ত্রণ নেন৷ নিজ প্রচেষ্টায় বক্সে বল নিয়ে কোনাকুনি শটে গোল করেন সাগরিকা। যার গোলে বাংলাদেশ প্রথম পর্বের ম্যাচে ভারতকে হারিয়েছিল।

টুর্নামেন্টের বাইলজ অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ে ম্যাচে সমতা থাকলে খেলা সরাসরি টাইব্রেকারে গড়ায়। সেখানেও ১১-১১ এ সমতা হয়। এর ফলে টসের মাধ্যমে বিজয়ী নির্ধারণ করা হয়। টস ভাগ্যে জয় হয় ভারতের। 

হারের পর এই টস নিয়ে অসন্তোষ ছিল বাংলাদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে। যার ফলে ম্যাচ ফলাফল স্থগিত করা হয়। এবার দেখার পালা ফলাফল কোথায় গড়ায়।


মন্তব্য