ইসরায়েলে ঢুকতে না পেরে ১ মাস সাগরে ভেসে অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে গেল ভেড়াবাহী জাহাজ

জাহাজ
  © দ্য ওয়েস্ট অস্ট্রেলিয়া

গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে গাজায় ইসরায়েলি হামলার প্রতিবাদে দেশটিতে আগত সব জাহাজে হামলার হুমকি দেয় ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা। এরই ধারাবাহিকতায় লোহিত সাগরে আগত প্রায় সব জাহাজেই হামলা শুরু করে দেশটি। এদিকে লোহিত সাগর উত্তপ্ত থাকায় দীর্ঘ প্রায় এক মাস সাগরে ভেসেও ইসরায়েলে ঢুকতে পারল না একটি গবাদি পশুবাহী জাহাজ। অবশেষে জাহাজটি অস্ট্রেলিয়া ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। এছাড়া টাইমস অব ইসরায়েলের প্রতিবেদনেও একই তথ্য জানানো হয়েছে।

ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা ইসরায়েলি মালিকানাধীন ও ইসরাইলগামী যেকোনও বাণিজ্যিক জাহাজে হামলা করে যাচ্ছে বলে জাহাজটিকে অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় ফ্রিমেন্টল বন্দর থেকে গত ৫ জানুয়ারি ১৪,৫০০ ভেড়া ও ২,০০০ গরুবাহী জাহাজ এমভি বাহিজাহ ইসরায়েলের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিল। কিন্তু লোহিত সাগরে পৌঁছার আগে জাহাজটি কিংকর্তব্যবিমূঢ় অবস্থায় বেশ কয়েকদিন সাগরে ভাসমান থাকার পর এটিকে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেয় ক্যানবেরা।
ফলে জাহাজটি বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে গিয়ে ফ্রিমেন্টল বন্দরে নোঙ্গর করে এবং গবাদি পশুগুলোকে জাহাজ থেকে নামানো হয়।

অস্ট্রেলিয়া ২০২৩ সালে পাঁচ লাখ ভেড়া ও পাঁচ লাখ গরু রফতানি করেছে। অস্ট্রেলিয়ান ব্রডকাস্টিং করপোরেশন জানিয়েছে, মার্শাল দ্বীপপুঞ্জের পতাকাবাহী জাহাজ এমভি বাহিজাহ’র মালিক ইসরায়েলি কোম্পানি বাসেম দাব্বাহ।  ইয়েমেনের হুথি যোদ্ধারা ইসরায়েলি মালিকানাধীন ও ইসরায়েলগামী জাহাজে হামলা চালানোর যে হুমকি দিয়ে রেখেছে তার দু’টি ক্ষেত্রেই এমভি বাহিজাহ’র মিল থাকায় জাহাজটি অস্ট্রেলিয়া থেকে ছেড়ে আসলেও লোহিত সাগরে প্রবেশের সাহস করেনি। এই একটি ঘটনায় ইসরায়েলের কয়েক কোটি ডলারের ক্ষতি হয়েছে বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন। সূত্র: টাইমস অব ইসরায়েল


মন্তব্য