কোটা সংস্কারের প্রভাবে ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়

রেলপথ
  © ফাইল ছবি

এক দফা দাবিতে সাড়ে তিন ঘণ্টা ধরে ঢাকা-রাজশাহী রেলপথ অবরোধ করে রেখেছে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীরা। সোমবার (৮ জুলাই) দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদ সংলগ্ন ফ্লাইওভারের নিচে রেলপথের উপরে অবস্থান নেন তারা। বিকেল ৫টা পর্যন্ত আন্দোলন চলমান থাকবে বলে জানান আন্দোলনকারী। এদিকে অবরোধের কারণে ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটেছে। 

সিডিউল বিপর্যয়ের বিষয়ে রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চল, রাজশাহীর ভারপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক আহমেদ হোসেন মাসুম বলেন, এখন পর্যন্ত ঢালারচর থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ অভিমুখী ঢালারচর এক্সপ্রেস, খুলনা টু রাজশাহী অভিমুখী কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস এবং ঢাকা টু রাজশাহী অভিমুখী ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেন দাঁড়িয়ে আছে। আন্দোলনটি যদি দীর্ঘায়িত হয় তাহলে ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ের সংখ্যা আরও বাড়তে থাকবে।

কোটা পদ্ধতি সংস্কার আন্দোলনের রাবির অন্যতম সংগঠক আমানুল্লাহ খান বলেন, আমরা সংগঠকরা ৩টা পর্যন্ত অবরোধ করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিকেল ৫টা পর্যন্ত অবরোধ চলমান রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এর আগে, সকাল ১১টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে জড়ো হয়ে সেখান থেকে মিছিলসহ রেলপথে গিয়ে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। তাদের দাবি হলো- সরকারি চাকরির সকল গ্রেডে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লেখিত অনগ্রসর গোষ্ঠী ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্নদের জন্য কোটাকে ন্যায্যতার ভিত্তিতে ন্যূনতম পর্যায়ে এনে সংসদে আইন পাস করে কোটা পদ্ধতিকে সংস্কার করতে হবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কোটাবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন বিভিন্ন বিভাগের হাজারো শিক্ষার্থী। কারো হাতে প্ল্যাকার্ড, কারো মাথায় স্লোগান লেখা ফিতা বাধা। মাঝেমধ্যে পরিবেশন করা হচ্ছে বিপ্লবী ও হাস্যরসাত্নক গান। ছাত্রদের পাশাপাশি কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছেন শতাধিক ছাত্রীও। রেলপথ অবরোধের পাশাপাশি মোড়ের চারটি সড়কও ব্লক করে দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

এ সময়  'কোটা না মেধা, মেধা মেধা', 'সারা বাংলায় খবর দে, কোটা প্রথার কবর দে', 'দেশটা নয় পাকিস্তান, কোটার হোক অবসান', 'কোটা বৈষম্য নিপাত যাক, মেধাবীরা মুক্তি পাক', 'আপোষ না সংগ্রাম, সংগ্রাম সংগ্রাম', '১৮ এর হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আবার', 'জেগেছে রে জেগেছে, ছাত্রসমাজ জেগেছে', 'বঙ্গবন্ধুর বাংলায়, বৈষম্যের ঠাঁয় নাই', 'লেগেছে রে লেগেছে, রক্তে আগুন লেগেছে', 'দিয়েছিতো রক্ত, আরো দেবো রক্ত', 'রক্তের বন্যায় ভেসে যাবে অন্যায়'সহ বিভিন্ন স্লোগানে প্রতিবাদ জানান তারা।

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কারের দাবিতে গত ৬ জুন থেকে আন্দোলন করে আসছে শিক্ষার্থীরা। এর আগে, মানববন্ধন, সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মহাসড়ক অবরোধের মত কর্মসূচি পালন করে তারা।


মন্তব্য