ঢাবি অধ্যাপক জিয়ার মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক

ঢাবি
  © ফাইল ফটো

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জিয়া রহমানের মৃত্যুতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

আজ শনিবার (২৩ মার্চ) এক শোকবাণীতে উপাচার্য বলেন, অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান ছিলেন বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট অপরাধ বিজ্ঞানী এবং খ্যাতিমান শিক্ষক ও গবেষক। তিনি সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, বিভাগীয় চেয়ারম্যান, হল প্রাধ্যক্ষ, শিক্ষক সমিতি, একাডেমিক কাউন্সিলসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে অত্যন্ত দক্ষতা ও সততার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। 

এছাড়া, তিনি ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অব ক্রিমিনোলজির বোর্ড ডিরেক্টর এবং ঢাবির সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড রিসার্চ ইন সোশ্যাল সায়েন্সের পরিচালক হিসেবেও অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। নিজ বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থী ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন এই গুণী শিক্ষক। 

উপাচার্য আরও‌ বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ এই শিক্ষক ছিলেন অসাম্প্রদায়িক, উদার ও মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন মানুষ। তিনি সমাজ, দেশ ও জাতির উন্নয়নে অপরাধ বিষয়ে অধ্যয়ন ও গবেষণা করেন এবং অপরাধের প্রতি সমাজের প্রতিক্রিয়া নিয়ে তাঁর সুচিন্তিত মতামত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশ করতেন। সমাজ বিজ্ঞান বিশেষ করে অপরাধ বিজ্ঞান শিক্ষার প্রসার ও গবেষণায় অসাধারণ অবদান রাখার জন্য অধ্যাপক জিয়া স্মরণীয় হয়ে থাকবেন বলে উপাচার্য উল্লেখ করেন।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাঁর পরিবারের শোক-সন্তপ্ত সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

উল্লেখ্য, অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান আজ শনিবার ভোরে  রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে  মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৯ বছর।

তার মৃত্যুর বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ নীল দলের জ্যেষ্ঠ সদস্য হাসান শাফী বলেন, ‘ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল ওনার। আমরা তাকে পৌনে চারটার দিকে ল্যাবএইডে নিয়ে যাই। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’


মন্তব্য