গোসলে নেমে সিরাজগঞ্জে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু 

সিরাজগঞ্জে
  © সংগৃৃহীত

সিরাজগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী সবুজ কানন স্কুল এন্ড কলেজের ৮ম শ্রেণির মেধাবী শিক্ষার্থী মোঃ রোমান কাটাখালে গোসল করতে নেমে মৃত্যু বরন করেছে। সিরাজগঞ্জ শহরের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে ঐতিহাসিক কাটাখাল। যেটা কাটাখালি নামেও পরিচিত। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রোমান প্রতিদিনের ন্যায় গতকাল অনুমান ১২.৩০ টার সময় সিরাজগঞ্জ শহরের বাহিরগোলা রেলব্রিজের নীচে অন্য সহপাঠীদের সাথে গোসল করতে নামে। অন্যরা সবাই গোসল সেরে উঠে গেলেও রোমান  আর উঠতে পারে না। 

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আশেপাশের লোকজন এসে পানিতে নেমে খোঁজা শুরু করে, কিন্তু তারা উদ্ধার করতে না পারলে, ডুবুরি দলকে খবর দিয়ে নিয়ে আসে রাজশাহী থেকে। অবশেষে ডুবুরি দল দীর্ঘ খোঁজা খুঁজির পর সন্ধা ৬ টার সময় মৃত দেহ উদ্ধার করে।

রোমানের মৃত দেহ দেখে সকলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। এখন এলাকায় শোককের মাতন চলছে। কেও মেনে নিতে পারছে না এরকম টকবগে একটা ছেলে হঠাৎ হারিয়ে যাবে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কয়ে গ্রামের ৩০/৪০ জন ছেলে একসাথে গোসল করতে নেমেছিল। বর্ষার পানি বাড়ায় খালে শ্রোত ছিল। এতে রোমান ভেসে পানার নীচে চলে যায়, সেখান থেকে আর উঠতে পারেনি। 

মৃত রোমান সিরাজগঞ্জ শহরের ব্যাপারিপাড়া গ্রামে নানার বাড়িতে থেকে সবুজ কানন স্কুল এন্ড কলেজে লেখা পড়া করত। সে ছোট বেলা থেকেই নানা বাড়ি থাকত। তার বাবার কথা কেও বলতে পারে না।  

রোমানদের স্কুলের ছাত্র শিক্ষক সহ সকলেই শোকাহত। কেও মেনেই নিতে পারছে না এরকম একটি মৃত্যুকে। আজ রোমান নেই সবাই আছে। নানা- নানির একমাত্র হাতে লাঠি আজ আর দুনিয়াতে নেই। চলে গেছে না ফেরার দেশে। তাই আজ শোকে পাথর হয়ে গেছে। 

রোমানের স্কুলের শিক্ষকরা জানান রোমান অত্যান্ত মেধাবী, নম্র ভদ্র প্রকৃতির ছিল। তার মৃত্যুতে আমরা একজন মেধাবী ছাত্রকে হারালাম। এটা মেনে নেয়া কঠিন। তার সহপাঠীরা জানান রোমান অত্যধিক ভালো মানুষ ছিল, আল্লাহ তাআলা যেন ওকে জান্নাতবাসী করেন।

আজ সবার মুখে মুখে রোমানের কথা। রোমান যেমন ভালো ছাত্র ছিল তেমনি ভালো মানুষও ছিল। তাই আজ সবাই রোমানকে স্মরণ করছে


মন্তব্য