হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দিলো আরব লীগ

হিজবুল্লাহ
  © ফাইল ছবি

গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে ফিলিস্তিনের অধিকৃত গাজায় আগ্রাসন চালিয়ে যাচ্ছে দখলদার ইসরায়েল। প্রায় নয় মাস ধরে চলা ইসরায়েলি নৃশংস হামলায় এখন পর্যন্ত ৩৭ হাজার ৮০০ এর অধিক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। তবে প্রথম থেকেই গাজায় ইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদ করে আসছে লেবাননের সশস্ত্র ইসলামি গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ। এদিকে হিজবুল্লাহর বিরুদ্ধে পুরোদমে হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল। এ অবস্থার মধ্যে লেবাননের সশস্ত্র ইসলামি গোষ্ঠী হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী তালিকা থেকে বাদ দিলো আরব লীগ। এখন থেকে হিজবুল্লাহ আর সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করা হবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে আরব বিশ্বের দেশগুলোর জোট আরব লীগ।

শনিবার (২৯ জুন) আরব লীগের সহকারী মহাসচিব ও মিসরীয় কূটনীতিক হোসাম জাকি প্রতিরোধ গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর সংসদীয় উপদলের নেতা মোহাম্মদ রাদের সাথে বৈরুতে এক বৈঠকের পর ওই ঘোষণা দিয়েছেন। খবর আনাদোলু এজেন্সির।

আরবি ভাষার সংবাদমাধ্যম আল-আখবারকে তিনি বলেছেন, হিজবুল্লাহ গোষ্ঠীর ওপর থেকে সন্ত্রাসী তকমা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আরব লীগ। কারণ এই গোষ্ঠীটি বর্তমান রাজনীতি ও লেবাননের ভবিষ্যতের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর তালিকা থেকে আরব বিশ্বের বাদ দেওয়ার এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে পশ্চিমা গণমাধ্যম এখনও নীরব রয়েছে।

আল-আখবার বলেছে, ২০১৬ সালের পর আরব লীগের সহকারী মহাসচিব জাকির সাথে হিজবুল্লাহর নেতা রাদ প্রথমবারের মতো বৈঠক করেছেন। ওই বছর সৌদি আরবের উদ্যোগে শিয়া মতাবলম্বী গোষ্ঠীটিকে ‘‘সন্ত্রাসী সংগঠন’’ হিসেবে ঘোষণা দেয় আরব লীগ।

একই সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যে ইরানি প্রভাব বিস্তারের পাশাপাশি ইরাক, ইয়েমেন, লেবানন, সিরিয়া ও আরব উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য হিজবুল্লাহকে দায়ী করা হয়েছিল।

বৈরুতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মিসরীয় ওই কূটনীতিক বলেছেন, আরব লীগের মহাসচিব আহমেদ আবুল ঘেইতের পক্ষে লেবানন ও এর জনগণের প্রতি এই অঞ্চলের সম্প্রদায়গুলোর সংহতি প্রকাশের লক্ষ্যে তিনি বৈরুত সফর করছেন।

আরব লীগের সহকারী এই মহাসচিব বলেছেন, দক্ষিণে সামরিক উত্তেজনা বৃদ্ধি কেবল লেবাননেই নয়, বরং পুরো মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্য গুরুতর চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে। বিশেষ করে সংঘাত যদি ছড়িয়ে পড়ে, তখন সেটি মোকাবিলা করা কঠিন হয়ে পড়বে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মিসরীয় এই কূটনীতিক জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবনা ১৭০১ মেনে চলার জন্য সব পক্ষের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে গাজা উপত্যকায় যুদ্ধের অবসানের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে; যা দক্ষিণ লেবাননে সংঘাত বন্ধ করবে।


মন্তব্য